আইপিএল, সিপিএল ২ লিগেই খেলা হচ্ছে না সাকিবের

শোনা যাচ্ছে, স্থগিত হওয়া আইপিএল হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে। তার আগে হবে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগও (সিপিএল), যেখানে জ্যামাইকা তাল্লাওয়াস নিয়েছে সাকিব আল হাসানকে। আইপিএল খেলতে গত শ্রীলঙ্কা সফর থেকে সরে দাঁড়ানো বাংলাদেশের বাঁহাতি অলরাউন্ডার কি আবারও জাতীয় দল ছেড়ে এই দুটি ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে খেলবেন?

সাকিব কী চাইছেন, তা জানা যায়নি। তবে বিসিবি তাদের করণীয় ভেবে রেখেছে। সিপিএল শুরু হবে আগস্টে, আর আইপিএল হওয়ার কথা সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে। একই সময়ে দেশের মাটিতে বাংলাদেশ আতিথেয়তা দেবে নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডকে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫টি করে মোট ১০টি টি-টোয়েন্টি এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিনটি করে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। সব মিলিয়ে মধ্য আগস্ট থেকে মধ্য অক্টোবর পর্যন্ত ১৬টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।

এই ব্যস্ত সূচির মধ্যেও কি সাকিব উড়াল দেবেন ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলতে? আইপিএলে আছেন আরেক বাংলাদেশি মোস্তাফিজুর রহমানও। প্রশ্ন উঠছে দুজন কী দেশের খেলা ফেলে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে খেলার অনুমতি পাবেন? উত্তরটা, না! তবে এখনই আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত জানাতে নারাজ সংশ্লিষ্টরা।

ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান বলেন, ‘আপাতত এসব নিয়ে আমাদের কোনও ভাবনা নেই। আমাদের অনাপত্তি জানানোর আগে ওদের অনাপত্তিপত্রের জন্য তো আবেদন করতে হবে।’ আগামী ১৮ কিংবা ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে শুরু হবে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) অবশিষ্ট ম্যাচ।

তিন সপ্তাহের মধ্যেই বাকি ৩১ ম্যাচ শেষ করতে চায় বিসিসিআই। ফাইনাল হতে পারে ৯ কিংবা ১০ অক্টোবর। বোর্ডের সঙ্গে এ ব্যাপারে সম্মতিও নাকি দিয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজি ও ব্রডকাস্টাররা। এর আগে আগামী ২৮ আগস্ট থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) নবম আসর বসবে।

এর আগে দল শ্রীলঙ্কা সফরে থাকার সময় দুই ক্রিকেটারকে আইপিএল খেলার জন্য ছাড় দিয়েছিল বিসিবি। এবারও কী এমন কিছু করতে পারে? আকরাম বললেন, ‘শ্রীলঙ্কায় আমরা টেস্ট খেলেছি। এখানে টি-টোয়েন্টি খেলবো। সাকিব বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য ওখানে যেতে চেয়েছিল। আমরা অনুমতি দিয়েছি।

এখানে যেহেতু টি-টোয়েন্টি হবে, এখানেও প্রস্তুতি নিতে সমস্যা হওয়ার কথা নয়।’ আইপিএলে অংশগ্রহণ কিংবা বিশ্রামের জন্য তারকা খেলোয়াড় বাংলাদেশে নাও পাঠাতে পারে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশও কী পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে? আকরাম সরাসরি জানালেন, পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে বাংলাদেশ সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নেবে, যেন বিশ্বকাপে ভালো পারফরম্যান্স করা যায়।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.