আবারো টান টান উত্তেজনায় চীন-ভারত

চীন ও ভারতের মধ্যে বেশ কয়েক দফা বৈঠকের পরেও লাদাখ সীমান্তে মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে। সীমান্ত থেকে চীনা সেনাদের সরে যেতে হুঁ’শিয়ারি দিয়েছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। অন্যদিকে, সীমান্তে সামরিক কর্মকাণ্ড বন্ধের পাশাপাশি ভারতকে শোধরানোর আহ্বান জানিয়েছে চীন।

বিরোধপূর্ণ লাদাখ সীমান্তে দেখা দেয়া উত্তেজনা নিরসনে প্রায় প্রতিদিনই বৈঠক করছেন ভারত ও চীনের শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তারা। এমনকি গত সপ্তাহে সীমান্ত সংকট সমাধানে পাঁচ দফা পরিকল্পনায় একমত হন দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তবে বাস্তবতা হচ্ছে, দফায় দফায় সামরিক ও রাজনৈতিক আলোচনার পরেও সীমান্তে তেমন কোনো অগ্রগতি হয়নি।

ভারতীয় সেনাদের মনোযোগ বিচ্ছিন্ন করতে চীনা সেনারা সীমান্তে পাঞ্জাবী গান বাজানোর পাশাপাশি হিন্দিতে বিভিন্ন উস্কানিমূলক প্রচারণা চালাচ্ছে বলে দাবি করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। সামরিক বাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, চীনের এই মনস্তাত্ত্বিক অভিযানে ভারতীয় সেনাদের টলানো যাবে না।

ভারতীয় সেনারা বরং এই গান উপভোগ করছে বলেও জানান তিনি। ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংও চীনের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন। রাজ্যসভায় বক্তব্য দেয়ার সময়ে তিনি বলেন, লাদাখে টহল দেয়া থেকে কোনো শক্তিই ভারতকে দমিয়ে রাখতে পারবে না।

তিনি বলেন, ‘সীমান্তে টহলের কারণেই মূলত এই মুখোমুখি পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। যদি এখন কেউ এই টহলের ধরণ নিয়ে প্রশ্ন তোলে তাহলে বলবো, এটি আমাদের ঐতিহ্যগত অধিকার। বিশ্বের কোনো শক্তিই আমাদের দমাতে পারবে না। আর এ জন্যই আমাদের সেনারা তাদের জীবন উৎসর্গ করেছে’।

তবে চীনের সেনারা সংযত রয়েছে দাবি করে ভারতকে উল্টো শোধরানোর আহ্বান জানিয়েছে বেইজিং। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র, ওয়াং ওয়েনবিন বলেন, ‘ভারত ও চীনের মধ্যে থাকা চুক্তি ও সমঝোতা আমাদের সেনারা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে আসছে।

একইসঙ্গে চীনের সার্বভৌমত্ব ও সীমান্তে শান্তি স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে আমরা বদ্ধপরিকর। তবে সীমান্তে শান্তি অর্জনের জন্য এখন ভারতকেই কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। পূর্বাঞ্চলীয় লাদাখ সীমান্তে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত মাস থেকে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে পারমাণবিক শক্তিধর ভারত ও চীনের মধ্যে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*