আম্পান: আবারো দেশে সাড়ে ১১ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস!

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে বুধবার সন্ধ্যায় জোয়ারে সাড়ে ১১ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হয়েছে। এতে জেলার ৬টি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙে অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

পানিতে তলিয়ে গেছে সে সব এলাকার ঘরবাড়ি এবং মাছের ঘের। তলিয়ে গেছে মুগডাল, চিনা বাদাম এবং ভুট্টার ক্ষেতসহ শত শত সবজির ক্ষেত। বৃহস্পতিবার দুপুরে বরগুনা জেলা শাসকের কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে তাৎক্ষণিকভাবে প্রস্তুতকৃত ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়ে সাড়ে ১১ ফুট জলোচ্ছ্বাস হয়েছে। জলোচ্ছ্বাসে বাঁধ ভেঙে পানি ঢুকে মাছের ঘের, শাকসবজি, আমবাগান ও পানের বরজসহ মরিচের বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ জানান, জেলার ছয়টি উপজেলার ৪২টি ইউনিয়নে ৯ হাজার ৮০০ বসতঘর আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ১৩ দশমিক ৫৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এতে ১২১টি মাছের ঘের এবং ১০টি চিংড়ির ঘের ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২৫০ হেক্টর ফসলের ক্ষেত এবং ৫০ হেক্টর সবজির ক্ষেত নষ্ট হয়েছে। এ ছাড়াও ১৫টি মুরগির এবং ১৯টি গরুর খামার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *