ইরানের প্রেসিডেন্টে রাইসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ!

ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি তেহরান থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রেখেছেন। এর প্রতিবাদে নিউইয়র্কে ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে অ’হিংস বিক্ষোভ হয়েছে। বুধবার আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিউইয়র্কে দৃষ্টিনন্দন কয়েকটি ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে রাইসির বিরু’দ্ধে মানবাধিকার ল’ঙ্ঘনের অ’ভিযোগ তুলে বিভিন্ন বার্তা দেওয়া হয়।

ইরানিয়ান আমেরিকান ফর লিবার্টি নামে এক সংগঠনের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয় ওই বিক্ষো’ভের। টুইটারে ওই বিক্ষো’ভের ভিডিও পোস্ট করেছে ওই সংগঠন। ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে ‘ইব্রাহিম রাইসির বিরু’দ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘ’নের অপ’রাধের তদন্ত হওয়া উচিত’ আর ‘স’ন্ত্রা’সীদের ম’নোনীত সরকার’র মতো রাইসিবিরোধী বিভিন্ন বার্তা প্রচার করা হয়।

এছাড়া রাইসির বি’রুদ্ধে মানবাধিকার ল’ঙ্ঘনের অভিযোগ সংক্রান্ত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদও ডিজিটাল ডিসপ্লেতে প্রচার করা হয়। মঙ্গলবার ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বক্তব্য রাখেন রাইসি।

প্রসঙ্গত, ক’ট্টরপন্থি ইব্রাহিম রাইসি কিভাবে ডেথ কমিশনের সদস্য হিসেবে ভূমিকা পালন করেছেন সেটি জানা যায় ২০১৮ সালে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ডকুমেন্ট থেকে। এই ডেথ কমিশন জোরপূর্বক অপ’হর’ণসহ ১৯৮৮ সালে এভিন ও গোহরদাশত কা’রাগারে হাজার হাজার ভিন্নমতাবলম্বী রাজনৈতিকের মৃ’ত্যুদ’ণ্ড কার্যকর করে। ইরান এখন পর্যন্ত পদ্ধতিগতভাবে গোপন রেখেছে ভুক্তভোগীদের ম’রদে’হ।

ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে ইব্রাহিম রাইসি মানবাধিকারের প্রতি দ’মন-পী’ড়ন চালিয়েছে বলে অ্যাম’নেস্টির রিপোর্টে উঠে আসে। ড. হাসান রুহানির পর ইব্রাহিম রাইসি ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.