ইরান থেকে গিয়েই সুর পাল্টালেন আইএইএ’র মহাপরিচালক!

ইরান থেকে গিয়েই সুর পাল্টালেন আন্তর্জাতিক পর’মাণু শ’ক্তি সংস্থা (আইএইএ) এর মহাপরিচালক রা’ফায়েল গ্রোসি। তেহরান সফর শেষ করে ভিয়েনায় পৌঁছেই আবার অ’ভিযোগ উত্থাপন করেছেন তিনি। সোমবার আইএইএ’র নির্বাহী বোর্ডের বৈঠকে দাবি তিনি করেছেন, ইরানের চারটি অঘো’ষিত স্থানে পার’মাণবিক উপাদান পাওয়া গেছে এবং এ সম্পর্কে তার সংস্থার প্রশ্নের উত্তর দেয়নি তেহরান।

সোমবার শুরু হওয়া নির্বাহী বোর্ডের বার্ষিক এ বৈঠক এক সপ্তাহ ধরে চলবে। গ্রোসি তার বক্তব্যে দাবি করেন, ওই চার স্থানের একটিতে প্রাকৃতিক ইউরেনিয়াম এবং বাকি তিনটিতে পরিবর্তিত ইউরেনিয়াম পাওয়া গেছে। রাফা’য়েল গ্রোসি এমন সময় ইরানের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করলেন যখন রবিবার তার তেহরান সফরে ইরানের পর’মাণু কে’ন্দ্রগুলোতে স্থাপিত আইএইএ’র পর্যবেক্ষণ ক্যামেরাগুলো সার্ভিস করার পাশাপাশি এগুলোর মেমোরি কার্ড প্রতিস্থাপন করতে সম্মত হয় দু’পক্ষ।

ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান মোহাম্মাদ ইসলামির সঙ্গে গ্রোসির সাক্ষাতের পর দুই কর্মকর্তা এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ওই সমঝোতার কথা জানান। তারা বলেন, দু’পক্ষ এনপিটি চুক্তির সম্পূরক প্রটোকলের আওতায় পারস্পরিক সহযোগিতার ব্যাপারে আলোচনা চালিয়ে যেতে সম্মত হয়েছে। গ্রোসি এ সমঝোতার ব্যাপারে ব্যাপক উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে তেহরান ত্যাগ করেন।

ভিয়েনায় গত এপ্রিল থেকে ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের যে সংলাপ চলছে তা ফলপ্রসূ করার জন্য আইএইএ’র সঙ্গে তেহরানের এ সমঝোতাকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। আ’মেরিকা পর’মাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে ইরানের ওপর যে নিষে’ধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা প্রত্যাহার না করার কারণে তেহরান আইএইএ’কে সহযোগিতা করা কমিয়ে দিয়েছিল।

Sharing is caring!