এই শহরে আকাশ থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে নেমে এল মাছ

সত্যজিৎ রায়ের ‘গুপি গাইন-বাঘা বাইন’ সিনেমার শেষ দৃশ্যে রসগোল্লার বৃষ্টি দেখেছিল দর্শক। ঠিক রসগোল্লা-বৃষ্টিও না, রসগোল্লার হাড়ির বৃষ্টি বললে সঠিক বলা হয়। সে যাই হোক, আসল কথা, সে তো ছিল সিনেমা। কিন্তু বাস্তবে আমেরিকার এক শহরে যা হল, তা প্রকৃত অর্থেই অভাবনীয়। মাছ-বৃষ্টি চাক্ষুষ করল সেখানকার মানুষ।

বুধবারের আজব বৃষ্টিতে আমেরিকার টেক্সাস প্রদেশের টেস্কারকানা শহরের মানুষ চমকে গিয়েছেন তো বটেই, অনেকে ভয়ও পেয়েছেন প্রকৃতির আজব খেয়াল দেখে। কারণ তারা হঠাৎই দেখেন, সাধারণ বৃষ্টিপাতের সঙ্গে আকাশ থেকে একাধিক ছোট আকারের জলজ প্রাণী বৃষ্টির মতোই পড়তে শুরু করেছে। যার মধ্যে ছিল ব্যাঙ, কাঁকড়া এবং মাছ। তবে মাছের সংখ্যাই ছিল সবচেয়ে বেশি।

টেস্কারকানা শহরের বহু বাসিন্দা মাছ ও ব্যাঙের বৃষ্টির সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। টেস্কারকানা শহরের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজেও আজব বৃষ্টির ছবি দিয়ে পোস্ট করা হয়। সঙ্গে লেখা হয়, “২০২১-এ এটাই বাকি ছিল… টেস্কারকানাতে আজ মাছ-বৃষ্টি হল। ভাববেন না যে এটা জোক।”

ওই পোস্টে আরও লেখা হয়, “তখনই এমন প্রাণীবৃষ্টি হয়ে থাকে, যখন জলস্রোতের সঙ্গে কোনওভাবে ব্যাঙ, কাঁকড়া ও ছোট মাছ ভূপৃষ্ঠের উপরে উঠে যায়। তারপর বৃষ্টির মতো করেই মাটিতে পড়তে শুরু করে তা।” টেস্কারকানার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে আরও লেখা হয়, “বিষয়টি কম ঘটলেও, আজ তাই হয়েছে। টেস্কারকানার বিভিন্ন জায়গায় এদিন প্রাণী বৃষ্টিপাত দেখা গিয়েছে। অতএব, সকলের ভালর জন্য বলা হচ্ছে, বিষটিকে নিয়ে হল্লা না করে চুপচাপ ২০২২-এর দিকে এগিয়ে যান আপনারা।”

টেস্কারকানার মাছ-বৃষ্টি নিয়ে আমেরিকার পরিবেশবিদরা চিন্তিত হলেও অনেকে আবার মজা পেয়েছেন। তারা টেস্কারকানার অফিসিয়াল পেজের পোস্টের তলায় মজা করে নানারকম কমেন্টও করেছেন। একজন লিখেছেন, “আমার ইচ্ছে মাঝে মাঝে টাকার বৃষ্টি হোক। এমনটা হতে পারে না?” একজন লিখেছেন, “আশা করি বাস্তবে কোনওদিন বিড়াল ও কুকুরের বৃষ্টি হবে না।” সূত্র: এপি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.