ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমাতে কীভাবে রসুন খাবেন

কোলেস্টেরল এক ধরনের চর্বি। এটি বেড়ে গেলে শরীরে বিভিন্ন ধরনের রোগ হয়। আবার শরীরে কোলেস্টেরলের দরকারও আছে। বেশ কিছু হরমোন তৈরিতে কোলেস্টেরল জরুরি। তাই একটা বয়সের পর নিয়মিত পরীক্ষা করা দরকার। পাশাপাশি এটি নিয়ন্ত্রণেও রাখা দরকার।

দেহে কোলেস্টেরল দুই ধরনের হয়। ভালো কোলেস্টেরল, যা কোষের গঠনে একান্ত প্রয়োজনীয়। শরীরে একাধিক হরমোন সৃষ্টির জন্যও শরীরে ভালো কোলেস্টেরল (এইচডিএল) প্রয়োজন। অপরদিকে শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের (এলডিএল) মাত্রা বেড়ে গেলে মারাত্মক প্রভাব পড়তে পারে। খারাপ কোলেস্টেরলের জন্য স্ট্রোকের ঝুঁকি ও হৃদরোগের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। তবে তা এড়াতে পারেন খুব সহজেই। কীভাবে? উত্তর লুকিয়ে রয়েছে আপনার রান্নাঘরে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্বাস্থ্যের উন্নতিতে দারুণ উপকারী রসুন। এটি রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা কম করে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোকের মতো বিভিন্ন হৃদরোগের ঝুঁকি কম করতে সাহায্য করে। শুধু কোলেস্টেরল কমিয়ে হৃদরোগের ঝুঁকি কমানোই নয়, রসুনের উপকারিতা অনেক।

এটি ওবেসিটির মতো ক্ষতিকর অসুখের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। শরীরে অত্যধিক মেদ জমতে দেয় না রসুন। নিয়মিত খাবারের তালিকায় রাখতে পারলে ওবেসিটি প্রতিরোধ করার পাশাপাশি নিয়মিত মদ্যপান ও ধূমপানের অভ্যাসও পরিত্যাগ করা যায় বলে মত তাদের।

চিকিৎসকরা বলেন, রসুনে বেশ কিছু উপকারী উপাদানগুলো রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। এতে থাকা প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস উচ্চ কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। তাই ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কম করে হার্ট অ্যাটাক কিংবা স্ট্রোকের মতো হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে নিয়মিত খাবারের তালিকায় রসুন রাখার পরামর্শ তাদের।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রসুন কোলেস্টেরল হ্রাস করার একটি দুর্দান্ত উপায়। তবে এজন্য আপনাকে সকালে বা রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটি কাঁচা খেতে হবে। এতে অ্যালিসন উপস্থিত রয়েছে, যা মোট এলডিএল কোলেস্টেরলের পরিমাণ হ্রাস করতে সক্ষম। এছাড়া, রান্নায় রসুনের ব্যবহার হোক কিংবা খালি পেটে, যে কোনোভাবেই রসুন খেলে উপকার পাওয়া যায়। সূত্র: এবিপি আনন্দ

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.