জয়ের ক্রেডিট যাকে দিলেন মাহমুদউল্লাহ

সিরিজের প্রথম ম্যাচে সফররত নিউজিল্যান্ডকে ৬০ রানে গুটিয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশের বোলাররা। দ্বিতীয় ম্যাচে সেই সুযোগ আর হয়নি। বাংলাদেশের করা ১৪১ রানের জবাবে জয়ে দ্বারপ্রান্তে গিয়েও হেরে গেছে নিউজিল্যান্ড। তবে ব্যাট হাতে ব্যাটসম্যানরা বড় সংগ্রহ গড়লেও জয়ের ক্রেডিট গেল ঠিকই বোলারদের পক্ষে।

ম্যাচ শেষে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ জয়ের জন্য বোলারদের ক্রেডিট দিয়েছেন।টাইগার অধিনায়ক বলেন, ‘আমার মনে হয় যে, বোলাররা খুবই ভালো বল করেছে। এই উইকেটে ১৪০ (১৪১) ডিপেন্ড করতে পেরেছে তারা। সো, ক্রেডিট (জয়ের জন্য) গোস টু দ্য বোলার।’

অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের পর মিরপুরের উইকেট নিয়ে বেশ সমালোচনা হয়েছে। তবে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের উইকেট গত ম্যাচের চেয়ে ভালো ছিল বলে জানালেন মাহমুদউল্লাহ। বলেন, ‘আমার মনে হয় উইকেট আজ বেশ ভালো ছিল, আগের ম্যাচের তুলনায়।

দিনের বেলায় আমরা যখন ব্যাটিং করেছি তখন কিছুটা স্পিন ধরছিল, বাউন্সও একটু উচু-নীচু হচ্ছিল। পরবর্তীতে উইকেট ভালো আচরণ করেছে।উইকেট নিয়ে টাইগার অধিনায়ক আরও বলেন, ‘আমার মনে হয় নতুন বলে ব্যাটিং করাটা অনেক কঠিন, এই উইকেটে। যখন বলের সিমটা অনেক শক্ত থাকে। ওই সময় বলের বেশ বাউন্সও হয়। কিছু বল খুব সার্ভ স্পিন করে।’

ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে উদ্বোধনী জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছেন মোহাম্মদ নাঈম এবং লিটন দাস। তাদের প্রসংশা করে রিয়াদ বলেন, ‘নাঈম এবং লিটন খুবই ভালো ব্যাটিং করেছে। আমাদের যেমন শুরুটা দরকার ছিল, পাওয়ার প্লেতে। তারা পারফেক্ট শুরু করে দিয়েছে। পার্টনারশীপ খুবই ভালো ছিল। এছাড়া আমাদের আরও কয়েকটা ভালো পার্টনারশীপ হয়েছে। যার ফলে এই উইকেটে ১৪১ ভালো হয়েছে।’

ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটের মধ্যে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটকে খুবই চ্যালেঞ্জিং বলা হয়। কারণ, একটি নির্দিষ্ট দিনে যারা ভালো খেলবে তারাই জয়ের স্বাদ পেয়ে থাকে। এছাড়া ম্যাচে যেকোন সময় মোড় ঘুরে যাওয়ার বিভিন্ন নজিরও রয়েছে। আজকের ম্যাচেও শেষ ওভারে হারের শঙ্কায় পড়েছিল বাংলাদেশ। যদিও অভিজ্ঞ মোস্তাফিজ শেষ পর্যন্ত মাথা ঠান্ডা রেখে সেটি সামাল দিয়েছেন।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেন, ‘টি-টোয়েন্টি খেলায় এ ধরনের চ্যালেঞ্জ প্রায় সময়ই মোকাবেলা করতে হয়। আপনি বোলিং কিংবা ব্যাটিংয়ে থাকেন। যেটা আজকে মোস্তাফিজ শেষ ওভারে ফেস করেছে। তবে ও ভালোভাবে করতে (মোকাবেলা) পেরেছে, এ জন্য আমরা ম্যাচটি জিততে পেরেছি।

Sharing is caring!