টাকা নিয়ে ‘পলাতক’ আরেক ই-কমার্সের মালিক, ফেসবুক লাইভে গালাগালি

এবার আরেকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘আনন্দের বাজার’ এর প্রতারণার তথ্য বেরিয়ে এসেছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিক আহমুদুল হক খন্দকার আকর্ষণীয় দামে পণ্য দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছেন। তিনি ‘পলাতক’ অবস্থায় ফেসবুক লাইভে এসে পুলিশ, সাংবাদিক ও গ্রাহকদের গালাগালি করছেন।

‘আনন্দের বাজার’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) আহমুদুল হক খন্দকারের বিরুদ্ধে গত ৫ অক্টোবর রাতে রাজধানীর গুলশান থানায় প্রতারণার অভিযোগ এনে মো. সুজন নামের একজন গ্রাহক মামলা করেন। শনিবার গুলশান থানার ওসি আবুল হাসান গণমাধ্যমকে বলেন, আনন্দের বাজারের মালিকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

তার অবস্থান এখনো জানা যায়নি। পলাতক অবস্থায় এবার ফেসবুক লাইভে আসেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এ এইচ খন্দকার মিঠু। লাইভে তিনি অত্যান্ত ক্ষোভের সাথে ই-কমার্স ব্যবসায়ের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য সাংবাদিক, পুলিশ ও ‘লোভী’ ভোক্তাদের দোষারোপ করেন।

এ এইচ খন্দকার মিঠু সবশেষ তিন দিনে তিন বার ফেসবুক লাইভে আসেন। লাইভে তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সাংবাদিকদের নিয়ে ক্ষোভের সাথে বিভিন্ন কথা বলেন। সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনের অনলাইনে ‘আনন্দের বাজারের সিইও সাড়ে ৩শ কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা’ শিরোনামে একটি নিউজ করে।

সেই নিউজের রিপোর্টারকে উদ্দেশ্য করে মিঠু লাইভে বলতে থাকেন, ওকে যদি আমি পেতাম তাহলে দুই গালে দুই থাপ্পড় দিতাম। তুই একটা (প্রকাশ যোগ্য না) … বাচ্চা। তোর মতো ইয়েলো (হলুদ সাংবাদিক) জার্নালিস্টের কারণে আজ ই-কমার্সের এই অবস্থা। তুই কীভাবে বললি আমি সাড়ে ৩শ কোটি টাকা নিয়েছি।

সাড়ে ৩শ কোটি টাকা কী তুই জানিস? এরকম আরও অনেক কথা তিনি লাইভে বলেন। লাইভে তিনি একজন আইনজীবীর পূর্ণ নাম উল্লেখ না করে তার বিরুদ্ধে আনন্দের বাজার থেকে ২০ লাখ টাকা নেওয়ার অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, ‘ইউনুস, তুই ই-কমার্স নিয়ে রিট করে দিস বেয়াদব? তোর মতো লোকের কারণে আজ ই-কমার্সের এই অবস্থা।

তোরে দেখলে মনে হয় না ৫০০ টাকার কাপড় পরিস। তোরে আমি ২০ লাখ টাকা ক্যাশ দিয়েছি। এরপর কথা বলিস? পুলিশের বিরুদ্ধে ১২ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ মিঠু বলেন, ওইদিন আমার পুলিশ ভাই এসেছিল, আমি ১২ লাখ টাকা ক্যাশ দিয়েছি। কই কেউ তো আমার পক্ষে কথা বলল না।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.