তপ্ত গরমে সুখবর শোনাল আবহাওয়া অফিস

শরতের স্নিগ্ধতা ছাপিয়ে রাজধানীজুড়ে বইছে তীব্র তাপদাহ। খরতাপে পুড়ছে প্রকৃতি। প্রচন্ড গরমে ঘরের বাইরে বের হওয়া নগরবাসীর ভোগান্তি চরমে। গরমে সবচেয়ে কষ্টে পাচ্ছে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষেরা।

কেটে গেছে শরতের অর্ধেক। আশ্বিনের শুরুর সময়টাতে প্রকৃতিতে থাকার কথা শিশিরের ভেজা ভেজা গন্ধ। হেমন্তের কার্তিক নিয়ে আসার কথা শীতের আগমনী গান। সকালটা হওয়ার কথা হিমেল। কিন্তু গেলো কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় এখনো প্রকৃতি পুড়ছে খরতাপে। ভোর পেরিয়ে দেখা দেয়া সূর্যটা হাসছে প্রবল প্রতাপে।

প্রাণ প্রকৃতি সবাই যেন ওষ্ঠাগত। একটু শীতলতার আশায় করোনার এই সময়টাতেও নানাভাবে স্বস্তি খোঁজার চেষ্টা করছেন তারা। বরাবরের মতোই এবারের গরমেও সবচেয়ে বেশি নাকাল খেটে খাওয়া শ্রমজীবীরা।

আবহাওয়া অফিস বলছে, বাতাসে আর্দ্রতা ও জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় তীব্র গরম অনুভূত হচ্ছে। রোববারও একই অবস্থা থাকবে, তবে ২১-২৫ সেপ্টেম্বর বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়াবিদ মো. আফতাবউদ্দিন বলেন, আকাশে মেঘ কম থাকায় গরমের অনূভুত বেশি হচ্ছে। আগামীকাল গরম থাকবে। ২১-২৫ সেপ্টেম্বর বৃষ্টি হলে তাপমাত্রা কমে যাবে। বৃষ্টিপাত না থাকায় গরমের তীব্রতাটা বেশি থাকলেও তা দু এক দিন স্থায়ী হতে পারে বলে মনে করেন আবহাওয়াবিদরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *