তার মতে, কোহলি দুনিয়ার সবচেয়ে মুখ–খারাপ করা ক্রিকেটার

ভারতের ক্রিকেটকে আজকের এই উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে আসতে যে কয়জন ক্রিকেটার সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তাঁর মধ্যে কোহলি অন্যতম। এই পর্যন্ত অনেক রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন এই তারকা ক্রিকেটার। নতুন খবর হচ্ছে, বিরাট কোহলির ব্যাপারে তাঁর অভিজ্ঞতা খুব বাজে।

ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার নিক কম্পটন সে অভিজ্ঞতা থেকেই বলছেন, ভারতীয় অধিনায়কের মুখ খুব খারাপ। কম্পটনের কাছে কোহলিই দুনিয়ার সবচেয়ে ‘মুখ–খারাপ’ ব্যক্তি।কোহলি মাঠে যে খুব সুবোধ বালক নন, সেটি সবাই জানে। সবাই এটিও জানে মাঠের কোহলি আর মাঠের বাইরের কোহলির মধ্যে কত তফাত।

কিন্তু কম্পটন তাঁর টুইটার মন্তব্যে কোহলিকে বিচার করেছেন মাঠের আচার-ব্যবহার দিয়েই। কিন্তু সেটি যে পুরোপুরি খেলাকেন্দ্রিক আচরণ, সেটি অবশ্য আলাদা করে বলেননি কম্পটন। তাই সাবেক এ ইংলিশ ক্রিকেটারের কথা শুনলে মনে হবে, কোহলি বুঝি পুরোপুরি এমন ধাঁচের মানুষই।

২০১২ সালে কম্পটন কোহলির স্লেজিংয়ের শিকার হয়েছিলেন, ‘আমি জীবনেও ভুলব না, ২০১২ সালে কোহলি কী অশ্রাব্য ভাষায় আমাকে গালিগালাজ করছিল। তখন আমার মনে হয়েছিল, এমন গালিগালাজ করে সে নিজেই নিজেকে ছোট করছে।

তখন আমার এটিও মনে হয়েছে, কোহলির তুলনায় শচীন টেন্ডুলকার, কেন উইলিয়ামসন কিংবা জো রুটরা কতটা নম্র ও ভদ্র ক্রিকেটার।’ লর্ডস টেস্টে ব্যালকনিতে বসেও কোহলি চুপ ছিলেন না লর্ডস টেস্টে ইংলিশ ও ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে উত্তপ্ত কথা বিনিময়ের বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাটা শুরু হয় ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে যশপ্রীত বুমরা জিমি অ্যান্ডারসনকে একাধিক বাউন্সার দিলে। ব্যাপারটি মেনে নিতে পারেননি ইংলিশ ক্রিকেটাররা। সেই প্রতিশোধ ইংল্যান্ডের ক্রিকেটাররা, বিশেষ করে অ্যান্ডারসন নেন ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে বুমরা যখন ব্যাটিংয়ে নামেন।

অ্যান্ডারসন একই ভাবে বুমরাকে দিয়ে যেতে থাকেন একের এক বাউন্সার। ব্যাপারটি যতটা না ইংল্যান্ডকে সুবিধা দিয়েছে, তার চেয়ে ক্ষতিই করেছে বেশি। জস বাটলারও বুমরার সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিলেন।

ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে বিরাট কোহলির সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয় ওলি রবিনসনের। ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে যখন একের পর এক উইকেট পড়ছিল, তখন কোহলির উদ্‌যাপনগুলোও যে ইংলিশদের ভালো লাগার কথা নয়, সেটা বলাই বাহুল্য।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.