তালেবানকে ইমরান খানের হুঁশিয়ারি

সব দল-উপদলকে নিয়ে তালেবান একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন করতে না পারলে আফগানিস্তানের গৃহযু’দ্ধের হু’মকির ঝুঁকি রয়েছে বলে হুঁ’শিয়া’রি করে দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিবিসি নেটওয়ার্ককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন,

যদি তারা একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন করতে না পারে, যদি তারা এখন কিংবা পরে সব দল-উপদলকে সরকারে স্থান না দেয়, তাহলে আফগানিস্তান ধীরে ধীরে গৃহযু’দ্ধের দিকে চলে যাবে। যার প্রভাব পাকিস্তানেও পড়বে। তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশটিতে গৃহযু’দ্ধ ছড়িয়ে পড়লে মানবিক ও শরণার্থী সংকট দেখা দেবে।

এতে পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করা সশ’স্ত্র গোষ্ঠীগুলোও আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করে হা’ম’লা চালাতে পারে। অর্থাৎ একটি অস্থিতিশীল ও বিশৃঙ্খল আফগানিস্তান দেখতে পাবো আমরা। এদিকে ইমরান খান বলেন, প্রতিবেশী আফগানিস্তানে নারীদের লেখাপড়া বন্ধ করে দেওয়া হলে—সেটা হবে সম্পূর্ণ ইসলামবিরোধী কাজ।

এ সময়ে আনুষ্ঠানিকভাবে পাকিস্তানের স্বীকৃতি পেতে হলে তালেবান সরকারকে যেসব শর্ত পূরণ করতে হবে—তাও তুলে ধরেন তিনি। তালেবান নেতৃবৃন্দের কাছে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী।

ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের নিরাপত্তার জন্য হু’ম’কি, এমন সন্ত্রাসীদের লালন-পালন করতে পারবে না আফগানিস্তান। গেল সপ্তাহে আফগানিস্তানের বালক বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়েছে। নিরাপত্তা শঙ্কার কথা বলে এখন পর্যন্ত মাধ্যমিক পর্যায়ের বালিকা বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হয়নি।

কিন্তু পাকিস্তানি নেতা বলেন, আমি মনে করি, মেয়েরাও স্কুলে যেতে পারবেন। বিবিসির সাংবাদিক জন সিম্পসনকে তিনি বলেন, তারা ক্ষমতায় আসার পর থেকে এখন পর্যন্ত যেসব বিবৃতি তালেবান দিয়েছে, তা সবই ইতিবাচক। আমি মনে করি, মেয়েদের স্কুলে যেতে দেবেন তারা।

নারীদের শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করার ধারণা কখনোই ইসলামিক হতে পারে না। এটা ধর্মের সঙ্গে কোনোভাবেই যায় না। আগস্টে কাবুলের পতন ১৯৯০-এর দশকে তালেবান শাসনের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে। তখন কট্টরপন্থী তালেবান নারী শিক্ষার ওপর কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে।

তালেবান নেতৃবৃন্দ বলছে, ইসলামিক আইনের গণ্ডির মধ্য থেকেই নারীদের অধিকার রক্ষা করা হবে। গেল সপ্তাহে বালিকা বিদ্যালয় খুলে না দেওয়ার ঘটনায় আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। পরবর্তীতে তালেবান মুখপাত্র বলেন, দ্রুতই আফগান মেয়েরা তাদের স্কুলে ফিরতে পারবেন।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, নিরাপত্তার কারণে আপাতত মেয়েদের জন্য স্কুলের যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এসময় জ’ঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের তৎপরতা বন্ধে তালেবান প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.