তালেবান সরকারে ঠাঁই পেলেন গুয়ানতানামো বে ফেরত চারজন

কিউবায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের বন্দিশালা গুয়ানতানামো বে ফেরত চারজন ঠাঁই পেয়েছে তালেবানের সদ্য ঘোষিত মন্ত্রিসভায়। ওবামা প্রশাসন ২০১৪ সালে মার্কিন সেনা সদস্য বোয়ে বার্গডাহলের বিনিয়মে গুয়ানতানামো বে থেকে যে পাঁচজন তালেবান সদস্যকে মুক্তি দিয়েছিল তাদের মধ্যে নতুন মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পাওয়া ওই চারজন ছিলেন বলে একটি মার্কিন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

ওই চারজনের মধ্যে রয়েছেন নতুন তালেবান সরকারের গোয়েন্দা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আবদুল হক ওয়াসিক, সীমান্ত ও উপজাতি বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী নরুল্লাহ নূরী, উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোহাম্মদ ফজল এবং তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী খায়রুল্লাহ খাইরখাহ।

গুয়ানমানামো বে থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত পঞ্চম তালেবান সদস্য মোহাম্মদ নবী ওমারিকে গত মাসে পূর্ব খোস্ট প্রদেশের গভর্নর হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। আফগানিস্তানের স্থানীয় গণমাধ্যম টোলো নিউজ মঙ্গলবার নতুন মন্ত্রিসভার যে তালিকা প্রকাশ করে, সেখানে তালেবানের পূর্ববর্তী সরকারের বেশ কয়েকজন পরিচিত মুখও দেখা গেছে।

ওয়াসিক, ফজল ও খাইরখাহ সাবেক তালেবান সরকারের মন্ত্রিসভায় ছিলেন। ওয়াসিক ছিলেন উপ -গোয়েন্দা প্রধান হিসেবে, ফজল ছিলেন সেনাবাহিনীর প্রধান হিসেবে এবং খাইরখাহ ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে। দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা দখলের প্রায় মাস খানেক পর মঙ্গলবার আফগানিস্তানে অন্তবর্তী সরকার ঘোষণা করেছে তালেবান।

মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দকে প্রধান করে সরকার গঠন করা হয়েছে। সরকারের উপপ্রধান হিসেবে স্থান পেয়েছেন তালেবানের আলোচিত নেতা আব্দুল গনি বারাদার। এ ছাড়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এফবিআইয়ের মোস্ট ওয়ান্টেড সিরাজুদ্দিন হাক্কানিকে।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন তালেবানের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের ছেলে মোল্লা ইয়াকুব। আর উপপ্রধান হিসেবে মোল্লা আবদুল সালাম হানাফিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন আমির খান মোত্তাকি।

Sharing is caring!