নো-ওয়াইড ছাড়াই এক ওভারে ৭ বল দেখল ক্রিকেটবিশ্ব

দারুণ সেঞ্চুরিতে আলো ছড়ালেন আভিশকা ফার্নান্দো। দলকে এনে দিলেন ৩০০ রানের লড়াকু পুঁজি। সেই পুঁজিও সাধারণ মনে হচ্ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানদের কাছে। তবে শেষ দিকে লংকান বোলারদের দক্ষতার কাছে পেরে উঠলেন না প্রোটিয়ারা।

কলম্বোতে বৃহস্পতিবার প্রথম ওয়ানডেতে ১৪ রানে জিতে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগে ১০ পয়েন্ট পেয়েছে শ্রীলংকা। এমন রান ফোয়ারার ম্যাচে ঘটেছে অবাক করা একটি ঘটনা। আম্পায়াররা এমন ভুল করতে পারেন! সেটিই এখন বিস্ময়।

শুধু ফিল্ড আম্পায়ারদেরই নয়, অফিসিয়াল স্কোরারদের সাহায্য নেওয়া তৃতীয় আম্পায়ারও ভুল করলেন। সবার মাথা কি একসঙ্গে হ্যাং হয়ে গিয়েছিল— সেই প্রশ্ন উঠেছে এখন। আম্পায়ারদের ভুলে ম্যাচে ৭ বলের অবাক করা ওভারের সাক্ষী থাকেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

অনেকেই বলতে পারেন, একটি বল হয়তো ওয়াইড বা নো হয়েছিল। না তেমনটা হয়নি। ৭ বলই ছিল লিগ্যাল। কিন্তু আম্পায়ার গুনলেন ৬। শ্রীলংকা ইনিংসের ১৬তম ওভারের ঘটনা এটি। বল করতে আসেন প্রোটিয়া অলরাউন্ডার এডেন মার্করাম। তিনি ওভারের ৬টি বল করার পরও রানআপের দিকে হাঁটছিলেন।

ওভার শেষ বলে নিজের ফিল্ডিং লাইনের দিকে এগোচ্ছিলেন। এ সময় আম্পায়াররা নিজেদের মধ্যে আলোচনা শুরু করেন। তৃতীয় আম্পায়ারের সহায়তা নেন। ম্যাচ অফিসিয়ালরা সমবেতভাবে সিদ্ধান্ত নেন যে, মার্করাম ওভারের একটি বল কম করেছেন। তার আরও একটি বল বাকি। আম্পায়ারদের নির্দেশে ফের বোলিং প্রান্তে আসে মার্করাম।

বলটি করতে বাধ্য হন প্রোটিয়া তারকা। তাতে সত্যি সত্যি এক ওভারে সাত বল হয়ে গেল মার্করামের। আম্পায়ারদের এমন ভুলের ফলেই সাত বলের ওভার দেখা গেল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। মার্করামের ওই ওভারটি ছিল দুর্দান্ত। ৭ বল করে মাত্র ২ রান দিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ বাড়তি বলে বিশেষ ফায়দা লুটতে পারেননি লংকান ব্যাটসম্যানরা।

শেষ বলটিতে ১ রান ওঠে। তবে আম্পায়ারদের ভুলে এক ওভারে ৭ বলের ঘটনাও দেখল ক্রিকেটবিশ্ব, যা এখন ক্রিকেটপ্রেমীদের মাঝে চর্চিত বিষয়। আম্পায়ারদের সমালোচনাও চলছে। ভাগ্যিস ওই বাড়তি বলে মাত্র ১ রান তুলেছে শ্রীলংকা। ছক্কা হাঁকালে সমালোচনার পালে ঝড়ের বেগে হাওয়া বইত নিশ্চিত।

Sharing is caring!