পরীমণির ৬ গরু কোরবানি হবে এফডিসির বাইরে

পরীমণির ৬ গরু কোরবানি হবে এফডিসির বাইরে

ইসলাম ধর্মের সব থেকে পবিত্র উৎসব গুলির মধ্যে একটি হলো ঈদুল আযহা। ঈদুল আযহা বা কুরবানির ঈদকে ত্যাগের উৎসব বলা হয়। এই দিনে সকলেই তার প্রিয় বস্তুকে আল্লাহর নামে কোরবানি করে। নতুন খবর হচ্ছে, এফডিসিতে পশু কোরবানি নিষিদ্ধ করায় এফডিসির বাইরেই পরীমনি তার ছয় গরু কোরবানি দেবেন বলে মঙ্গলবার জানান। পরীমণি বলেন, ‘এফডিসিতে কোরবানি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাই এফডিসির বাইরেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোরবানি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

প্রতি বছর এফডিসিতে সহশিল্পীদের জন্য গরু কোরবানি দেন পরীমণি। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও এফডিসিতে ৬টি গরু কোরবানি দেবেন বলে জানিয়েছিলেন সপ্তাহ খানেক আগে। পরীর গরু কোরবানির এ খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর কোরবানি দিলে এফডিসি নোংরা ও আবর্জনা হয়ে যায়, দুর্গন্ধ ছড়ায়-এ অজুহাত তুলে কোরবানি নিষিদ্ধ করে এফডিসি কর্তৃপক্ষ। নিষিদ্ধের পরিপ্রেক্ষিতেই এফডিসির বাইরে ছয় গরু কোরবানির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ঢাকাই ছবির এ নায়িকা।

তবে কোরবানি যেখানেই হোক মাংস এফডিসিতে যাবে। ছয় গরুর সব মাংস সহশিল্পীদের মধ্যে যারা অসহায় ও আর্থিক অনটনে আছেন তাদের মাঝে বিলি করবেন পরী। পরীমণি বলেন, ‘কোরবানির জন্য ছয়টি গরু ক্রয় করেছি। গরুগুলো এখন এফডিসির সামন রাখা আছে। করোনার সংক্রমণ বাড়ায় আগামীকাল স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোরবানি দেওয়া হবে। পরে নিজে উপস্থিত হয়েই মাংস বিতরণ করবো।’

এফডিসিতে প্রথমবার একটি গরু কোরবানি দিলেও পরের বছর দুইটি এবং তার পরের বছর তিনটি গরু কোরবানি দেন পরীমণি। গেলো বছর এফডিসিতে ৫টি গরু কোরবানি দিয়েছেন এ নায়িকা। আর এবার দিচ্ছেন ছয়টি গরু। পরীমণি বলেন, ‘আগেই বলেছি এফডিসি আমার পরিবার। যতদিন বেচেঁ আছি সামর্থ থাকা পর্যন্ত পরিবারের সদস্যদের জন্য কোরবানী দিয়ে যাবো।’

পরীমণি বলেন, ‘পাঁচ বছর ধরে এফডিসিতে কোরবানি দিচ্ছি। এবার ছয় বছর হবে। তাই ছয়টি গরু কোরবানি দেব। প্রতি বছর একটি করে গরু বাড়াব ইনশা আল্লাহ।’ তিনি বলেন, ‘কোরবানির ঈদ আগে নানুর বাড়িতে করতাম। আমি জানতাম না চলচ্চিত্রের অনেক কলাকুশলী মানবেতর জীবন যাপন করেন। জানার পর থেকে এফডিসিতে কোরবানি দিই। যারা কোরবানি দিতে পারেন না, তাদের জন্যই এই উদ্যোগ।’

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.