পাঞ্জশিরে ৬০০ তালেবান যোদ্ধা নিহত

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় পানশির উপত্যকায় তালেবানের প্রায় ৬০০ সদস্য নি’হ’ত হয়েছেন বলে প্রদেশটির স্থানীয় সশস্ত্র সংগঠন ন্যাশনাল রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট (এনআরএফ) দাবি করেছে। এছাড়া গ্রে’প্তার হয়েছে সহস্রাধিক তালেবান সদস্য। স্থানীয় সময় শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) এসব তালেবান সদস্য নিহত হয় বলে দাবি করেন এনআরএফ মুখপাত্র ফাহিম দাশতি।

রাশিয়ার সংবাদমাধ্যম স্পুৎনিকের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এক টুইটে এমন তথ্যই জানিয়েছেন প্রতিরোধ বাহিনী ন্যাশনাল রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট বা এনআরএফ-এর মুখপাত্র ফাহিম দেশটি। এতে তিনি বলেন, প্রায় ৬০০ তালেবান স’ন্ত্রা’সীকে পাঞ্জশিরের বিভিন্ন অংশে হ’ত্যা করা হয়েছে।

আটক করা হয়েছে এক হাজারেরও বেশি স’ন্ত্রা’সীকে। এরমধ্যে অনেকেই নিজেরাই আত্মসমর্পন করেছে। এনআরএফ যে তালেবানের হ’তাহ’তের যে দাবি করেছে তা অস্বীকার না করলেও পাল্টা টুইট করেছে তালেবানও। এতে সংগঠনটির মুখপাত্র বিলাল কারিমি দাবি করেছেন, তারা পাঞ্জশিরের অন্তত ৪টি জেলার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন।

জেলাগুলো হচ্ছে, খিনিজ, উনাবাহ, শতুল ও পারিয়ান। তবে কোনো পক্ষের দাবিই স্বতন্ত্রভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি। মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছাড়ার ঘোষণা দেয়ার পর দেশটির শহরগুলো দখল করতে থাকে তালেবান মিলিশিয়ারা।

গত ১৫ আগস্ট নাগাদ দেশের ৩৪ প্রদেশের ৩৩টিই তালেবানের দখলে চলে আসে। তবে এখনও হার মানেনি পাঞ্জশির। সেখানে থাকা প্রতিরোধ যো’দ্ধারা তালেবানকে থামিয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। ভূপ্রাকৃতিক কারণে পাঞ্জশিরে প্রবেশ অত্যন্ত কঠিন।

Sharing is caring!