পেঁয়াজের দাম বাড়ায় ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ

লাফিয়ে লাফিয়ে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ। তবে সে তুলনায় লাভবান হচ্ছে না কৃষক। সরবরাহ কম থাকা ও নজরদারীর অভাবে এ অবস্থা বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য। কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় বাজার ঊর্ধ্বমুখী। বলা হচ্ছে, নতুন পেঁয়াজ আসলে স্বাভাবিক হবে বাজার।

দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজের এক তৃতীয়াংশ সরবরাহ হয় পেঁয়াজভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত পাবনা থেকে। কিন্তু এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজি প্রতি ৩৫ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৬৫ টাকায়। অস্বাভাবিকভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় বিপাকে পড়েছে মানুষ। বাজারে সরবরাহ কম থাকা ও অতি বৃষ্টিতে পঁচনের কারণে দাম বাড়ছে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।

তবে পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আজাহার আলী দাবি ভারতীয় পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় বাজার ঊর্ধ্বমুখী। বন্যার কারণে ফরিদপুরের অনেক এলাকায় পেঁয়াজের আবাদ হয়নি। আবার মাঠেই পঁচে গেছে অনেক পেঁয়াজ। এ অবস্থায় আগাম বা মুড়িকাটা পেঁয়াজ বাজারে না আসলে আরও দুই থেকে তিনমাস দাম বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে বলে জানান উপজেলার কৃষি অফিসার মোহাম্মদ আবুল বাশার।

রাজবাড়িতে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দুই লাখ টন পেঁয়াজ বিভিন্ন স্থানে রপ্তানি হয়। এর পরেও দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়ায় নজরদারীর অভাবকে দুষছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, হঠাৎ করেই ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের যৌক্তিক কারণ খুঁজে পাচ্ছেনা বাংলাদেশ। তবে গতবারের মত সংকট হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন তিনি। বাণিজ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে বলা হচ্ছিল বৃষ্টি জনিত কারণে সমস্যা হয়েছে এবং যেটুকু বেড়েছে সেটা সাময়িক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *