প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য সুখবর

বাংলাদেশের অর্থনীতির বিভিন্ন সেক্টর করোনাভাইরাস মহামারিতে যখন স্তবির অবস্থা বিরাজ করছে, তখন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চাঙ্গা রেখেছে প্রবাসী কর্মীদের পাঠানো রেমিটেন্স। বাংলাদেশের অর্থনীতি যে খুঁটির উপর দাঁড়িয়ে, তার বড় একটি অংশ আসে রেমিটেন্স থেকে।

বহু আগে থেকেই বিদেশ বিভুঁইয়ে কাজ করা এই মানুষগুলো বরাবরই অবেহেলিত দেশে এবং কর্মস্থল বিদেশে। প্রবাসীরা দেশে এসে বিদেশে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে প্রতিনিয়ত নানাভাবে ভোগান্তি ও অবহেলার শিকার হচ্ছেন।

সচিবালয়ে রোববার (৩০ মে) বিকেলে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য এ সুখবর দিলেন প্রবাসী কল্যাণ সচিব ড. আহমেদ মুনিরুচ সালেহীন। বিদেশগামী কর্মীদের জন্য বিমান ভাড়া কমানোর পরিকল্পনা করছে সরকার।

পাশাপাশি ওই নির্দিষ্ট দেশে যাবার পর প্রত্যেক কর্মীকে কোয়ারেন্টাইন বাবদ ২৫ হাজার করে টাকা দেয়ারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের মধ্যেও প্রবাসী কর্মীরা যেন কোনো ধরনের ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার না হয় সেজন্য ইতোমধ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বিমানের ভাড়া কমানোর চিন্তাভাবনা চলছে।

তিনি আরও বলেন, আন্তর্জাতিক কতগুলো বিষয় আছে, সেগুলোর সঙ্গে মিল রেখেই চেষ্টা চলছে। বিমানের টিকাও প্রবাসী কর্মীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেওয়া হবে। সেজন্য মন্ত্রণালয়ে তালিকা তৈরি করা হবে। যখন টিকা পর্যাপ্ত হবে, তখন বিদেশগামী কর্মীদের এটা দেওয়া হবে।

সচিব আরও বলেন, করোনাভাইরাসের সময় একজন প্রবাসী কর্মী যখন বিদেশে যাত্রা করবেন তখন হোটেলে কোয়ারেন্টাইনের খরচ বাবদ ২৫ হাজার করে টাকা দেওয়া হবে। এটির পদ্ধতি হবে প্রবাসী কর্মীদের কনফার্ম টিকিটের বিপরীতে অথবা বিমান সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.