বাহরাইনের তীব্র নিন্দায় ফিলিস্তিন

ইসরায়েলের সঙ্গে বাহরাইনের স্বাভাবিক সম্পর্কের ঘোষণায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ। গতকাল শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) ইসরায়েল-বাহরাইন স্বাভাবিক সম্পর্কের ঘোষণার পর ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানায়, ‘দখলদার রাষ্ট্র ইসরায়েল রাষ্ট্রের সঙ্গে বাহরাইনের স্বাভাবিক সম্পর্ক নিয়ে আমেরিকা ইসরায়েল ও বাহরাইন ত্রি-রাষ্ট্রীয় ঘোষণা প্র’ত্যাখ্যান করেছে এবং এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ।

বাহরাইনের স্বাভাবিকিকরণের প্রতিবাদ জানিয়ে বাহরাইনের মানামায় নিযুক্ত ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত তাৎক্ষনিক ফিরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেয় ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। তাছাড়া ফিলিস্তিন কর্তৃপক্ষ বাহরাইনের এই ঘোষণাকে জেরুজালেম, আল আকসা মসজিদ ও ফিলিস্তিনবাসীর সঙ্গে ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে উল্লেখ করে।

ফিলিস্তিনের রাজনৈতিক দল প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও) বাহরাইনের তীব্র জানায়। পিএলও-এর মহসচিব সায়েব এরাকাত এক বিবৃতিতে বলেন, ‘ফিলিস্তিনবাসীর মৌলিক অধিকারের বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজের প্রেসিডেন্ট হওয়ার প্রচারণায় অবদান রাখছেন।’

হামাসের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘বাহরাইন যা করেছে তা অত্যন্ত অসম্মানজনক এবং তা বাহরাইনের শাসকদের বড় ধরনের পতন ও রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি করবে। হামাস, প্যালেস্টিয়ান ইসলামিক জিহাদ ও অন্যান্য দল ইসরায়েল-ফিলিস্তিন চুক্তিকে ‘আরব লিগের ব্যর্থতার ফল’ বলে উল্লেখ করে।

এছাড়া গত সপ্তাহে আরব লিগের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সভায় ফিলিস্তিনের উত্থাপিত আমিরাত-ইসরায়েল সম্পর্কের নিন্দা প্রস্তাব অগ্রাহ্য করা হয়। ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার ঘোষণা দিয়ে বাহরাইন ফিলিস্তিন সঙ্কট সমাধানে ২০০২ সালের আরব পিস ইনিশিয়েটিভ এবং আরব ও ইসলামিক শীর্ষ সম্মেলনের প্রস্তাবিত সমাধানকে ছুড়ে ফেলার মতো মনে করেন অনেকে।

ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী দলগুলো ইসরায়েলের সঙ্গে বাহরাইনের স্বাভাবিকীকরণের ঘোষণাকে যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষিত শতাব্দীর চুক্তির অংশবিশেষ বলে মনে করছে, যে চুক্তির মাধ্যমে ফিলিস্তিন ইস্যুকে পুরোপুরি মুছে ফেলা হবে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইসরায়েল-বাহরাইন সম্পর্ক স্বাভাবিক করার ঘোষণাকে স্বাগত জানায় ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনয়ামিন নেতানিয়াহু।

গত ১৩ আগস্ট সংযুক্ত আরব আমিরাত ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্কের ঘোষণা দেয়। ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়া আরব দেশগুলোর মধ্যে চতুর্থ দেশ হলো বাহরাইন। ১৯৮৯ সালে মিশর ও ১৯৯৪ সালে জর্দান এবং সর্বশেষ গত মাসে আরব আমিরাত ইসরায়েলকে স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়েছিল।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*