বিক্ষোভের জেরে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

দুর্নীতি ও জীবনযাপনের খারাপ মানের প্রতিবাদে লিবিয়ার বেনগাজি, আল-মার্জ, সাভাসহ বেশ কয়েকটি শহরের মানুষ বিক্ষোভ করছিল। একপর্যায়ে তারা বেনগাজিতে প্রশাসনিক সদর দপ্তরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এরপর পূর্ব লিবিয়ায় অন্তর্বর্তী সরকার পদত্যাগ করার ঘোষণা দেয়।

খবরে বলা হয়েছে, বিক্ষোভের জেরে প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লা আল-থানি হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভের স্পিকারের কাছে তাঁর পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। ২০১১ সালে দীর্ঘ সময়ের স্বৈরাচারী শাসক গাদ্দাফির শাসন শেষ হওয়ার পর পূর্ব ও পশ্চিম লিবিয়ায় আলাদা দু’টি প্রতিদ্বন্দ্বী সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করে।

জানা যায়, বেনগাজি ছাড়াও আল-মার্জে সরকারি ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। এছাড়াও দক্ষিণের শহরগুলিতেও বিক্ষোভ ছড়িয়েছে। এর কারণ গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো, বারবার লোডশেডিং, পেট্রোল ও ডিজেলের অত্যধিক দাম বৃদ্ধি ও সাধারণ মানুষের কাছে নগদ টাকার অভাব।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, গত ১৪ মাস ধরে পূর্ব লিবিয়ার সরকারের সঙ্গে এলএনএ-র সংঘাত চলছে। এলএনএ রাজধানী ত্রিপোলির নিয়ন্ত্রণ নেয়ারও চেষ্টা করেছে। একই সঙ্গে তারা লিবিয়ার সব তেল সংস্থায় অবরোধ করে রেখেছে। ফলে, আর্থিক সংকটে পড়ে দেশটি। উল্লেখ্য, গদ্দাফির পতনের পর থেকেই রাজনৈতিক, মানবিক ও অর্থনৈতিক সমস্যায় রয়েছে লিবিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *