ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ, নেই ২ উইকেট

অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে ভারতের ২৪৪ রানের টার্গেটে এখন ব্যাট করছে বাংলাদেশের যুবরা। ৪৪ রানের মাথায় ২ উইকেটের পতন হয়েছে। প্রান্তিক নওরোজ নাবিল ৭ বলে ১২ রান করে ক্রিজে আছেন। সাথে আছেন আইচ মোল্লা তিনি এখনো রানের খাতা খোলেননি। আর আগে, ভারতের বিপক্ষে টস জিতেছে বাংলাদেশ দল। টস জিতে ভারতীয় যুবাদের আগে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক রাকিবুল হাসান।

সেমিফাইনাল ম্যাচের শুরুতে ভারতকে ভালোভাবেই চেপে ধরেছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। কিন্তু শেষদিকে দারুণভাবে ঘুরিয়ে দাঁড়িয়েছে ভারতের যুবারা। যার সুবাদে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৪৩ রানের লড়াকু সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছে তারা। বাংলাদেশকে ফাইনালে উঠতে করতে হবে ২৪৪ রান।

ইনিংসের ৪৫ ওভারের মধ্যে ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলার পরেও, শেষ ৫ ওভারে ৫০ রান যোগ করেছে ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দল। শুরুতে যে নিয়ন্ত্রিত ও আ’ক্র’মণাত্মক বোলিং করেছিল বাংলাদেশ যুবারা, শেষদিকে তা আর ধরে রাখতে পারেনি। যে কারণে এখন চ্যালেঞ্জিং স্কোরের সামনেই পড়তে হয়েছে।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে টস জিতে আগে ফিল্ডিং নিয়েছিল বাংলাদেশ। শুরুর বোলিং তোপে ইনিংসের প্রথম ২৫ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৭৭ রান করতে পেরেছিল ভারত। সেখান থেকে শেষ ২৫ ওভারে তারা করে আরও ১৬৬ রান।

ভারতীয়দের আড়াইশ ছুঁইছুঁই সংগ্রহ এনে দেওয়ার বড় কৃতিত্ব তিন নম্বরে নামা শাইক রশিদের। ইনিংসের নবম ওভারে উইকেটে এসে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে ১০৮ বলে ৯০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। যেখানে ছিল তিন চার ও একটি ছয়ের মার।

শেষ দিকে মারমুখী ব্যাটিংয়ে ভিকি ওস্তাওয়াল মাত্র ১৮ বলে খেলেন ২৮ রানের ক্যামিও ইনিংস। এটিই ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। আরেক বোলার রাজাবর্ধন হাঙ্গারেকার ৭ বলে করেন ১৬ রান। এছাড়া ইয়াশ ঢুল ২৬ ও রাজ বাওয়ার ব্যাট থেকে আসে ২৩ রান।

বাংলাদেশ একাদশ: রাকিবুল হাসান (অধিনায়ক), মোহাম্মদ ফাহিম (উইকেটরক্ষক), এস এম মেহরব হাসান, আইচ মোল্লা, মাহফিজুল ইসলাম, আশিকুর জামান, প্রান্তিক নওরোজ নাবিল, গাজী তাহজিবুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম, তানজিম হাসান সাকিব ও নাইমুর রহমান নয়ন।

ভারত একাদশ: হারনুর পান্নু, আঙক্রিশ রাঘুবংশি, শাইক রশিদ, ইয়াশ ঢুল (অধিনায়ক), নিশান্ত সিন্ধু, রাজানগার বাওয়া, কৌশল তাম্বে, রাজাবর্ধন হাঙ্গারেকার, ভিকি ওস্তাওয়াল ও রবি কুমার।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.