ভারতে করোনার সংক্রমণ নিয়ে যা বলছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন বলেছেন, ভারতে করোনার যে ধরনটি ছড়াচ্ছে, তা অনেক বেশি সংক্রামক। করোনার এই ধরনটি সম্ভবত টিকার সুরক্ষাকে এড়াচ্ছে। ভারতে করোনার বিস্ফোরণে এই বিষয়গুলো ভূমিকা রাখছে।

সৌম্য স্বামীনাথন গতকাল শনিবার বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সতর্ক করে বলেন, ‘ভারতে আজ আমরা মহামারির যে বৈশিষ্ট্যগুলো দেখছি, তা এটাই ইঙ্গিত করছে যে এটা অত্যন্ত দ্রুত ছড়িয়ে পড়া করোনার ধরন।’

ভারতে শুক্রবার করোনায় মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হয়েছে। এদিন দেশটিতে করোনায় সংক্রমিত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ১৮৭ জনের। শনাক্ত হয়েছেন ৪ লাখ ১ হাজার মানুষ। ভারতে এই প্রথম এক দিনে চার হাজারের বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। আর এক সপ্তাহে চতুর্থবারের মতো দৈনিক সংক্রমণ চার লাখ ছাড়াল। এ নিয়ে ভারতে করোনায় মোট ২ লাখ ৩৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হলো। আর দেশটিতে মোট সংক্রমিত হয়েছেন ৩৭ লাখ ২৩ হাজার ৪৪৬ জন।

ভারতে করোনার যে ধরনটি ছাড়াচ্ছে, সেটি ‘বি.১.৬১৭’ নামে পরিচিত। করোনার এই ধরনটি ভারতে গত বছরের অক্টোবরে প্রথম শনাক্ত হয়। এই ধরনটিকে অতি সংক্রামক বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন বলেন, ভারতে করোনার বিপর্যয়কর পরিস্থিতি সৃষ্টির ক্ষেত্রে ‘বি.১.৬১৭’ ধরনটি সুস্পষ্টভাবে ভূমিকা রাখছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান এই বিজ্ঞানী বলেন, ভারতের করোনা পরিস্থিতির অবনতির পেছনে অনেকগুলো বিষয় কাজ করেছে। তার মধ্যে অধিক দ্রুত ছড়িয়ে পড়া করোনার ধরন অন্যতম একটি বিষয়।

করোনার ‘বি.১.৬১৭’ ধরনটি ভারতের বাইরে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। দিন কয়েক আগে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানায়, ভারতে প্রথম শনাক্ত ‘বি.১.৬১৭’ নামের করোনার ধরনটি বিশ্বের এক ডজনের বেশি দেশে পাওয়া গেছে। করোনার ভারতীয় ধরন বাংলাদেশে শনাক্ত হওয়ার ঘোষণা গতকাল শনিবারই এসেছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ করেনার ভারতীয় ধরনটিকে (বি.১.৬১৭) ‘উদ্বেগজনক ধরন’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি বিবেচনা করছে। এ প্রসঙ্গে সৌম্য স্বামীনাথন বলেন, এই ধরনটি উদ্বেগজনক হতে পারে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.