ভ্যানের প্যাডেল ঘুরিয়ে সংসার চালাচ্ছে কাওসার, পেয়েছে জিপিএ-৫

দৈনন্দিন জীবনে মাঝে মাঝে কষ্টে পড়তে হয়। এটা জীবনের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এই কষ্টের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক বেশ দৃঢ়। অবশ্য কারো কারো জীবনে কষ্টটা বিলাসিতার মতো। আবার কারো ক্ষেত্রে অসহনীয়। তবে আল্লাহ কাউকে সাধ্যতীত বোঝা চাপিয়ে দেন না।

আমার যখন ফল প্রকাশ হয় সে সময় একজন যাত্রী নিয়ে দূরে ছিলাম। আসার জন্য খুব ছটফট করলেও পারি নাই। কারণ, যাত্রীর সাথে যাওয়া এবং ফেরার কথা ঠিক হয়েছে। তার কাজ শেষ না হলে তো ফেরাও সম্ভব নয়। তাই ফিরতে দেরি হলো। স্কুলে এসে হেডস্যারের কাছে শুনলাম আমি জিপিএ-৫ পেয়েছি’।

আনন্দে চোখে পানি টলমল অবস্থায় কথাগুলো বলছিল কাওসার হোসেন আদর। তার বাড়ি পৌর এলাকার দক্ষিণ কাজিরহাট ৯নং ওয়ার্ডের পন্ডিত পাড়ায়। নীলফামারীর জলঢাকা সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় হতে সে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ হতে অংশ নিয়েছিল। বৃহস্পতিবার দুপুরে ফল প্রকাশ হলে সে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

জলঢাকা সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় সূত্র জানায়, চলতি বছর বিদ্যালয়টি হতে ২৮৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ হতে ১৪৬ জন ও মানবিক বিভাগ হতে ১৪০ জন অংশ নিয়েছিল। পাশের হার ৯৮.২৫।

কাওসারের সহপাঠি আবু সাঈদ, লাজু ও পিংকি জানায়, তার পোষাক ও চলাফেরায় দারিদ্রতার ছাপ থাকলেও মনটা অনেক বড়। আমরা ক্লাস সিক্স হতে বিভিন্নখানে প্রাইভেট পড়লেও তাকে বাইরে কোথাও পড়তে দেখেছি এমনটা চোখে পড়েনি। তবে ক্লাসে সে খুব মনযোগী ছিল।

কাওসারের বাবা অলিয়ার রহমান জানায়, মুই (আমি) ভ্যানের প্যাডেল ঘুরায়ে সংসার চালাই। কয়দিন ধরি অসুস্থ। ফলে মোর (আমার) বদলে বেটা (ছেলে)টা ভ্যান টানতেছে। হামরা (আমরা) গরিব মানুষ হাতে করি পেটে দেই। হেড স্যার কইছে তোর বেটা ভালো ফল করিছে। তোমরায় কন (বলেন) তো হামার কি আর উপর ক্লাসে পড়িবার সামর্থ্য আছে? যদি কেউ তার জন্য সাহায্য-সহযোগিতা করে তাহলে পড়িবার পারিবে নাহলে এখানেই তার পড়া শেষ।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.