ম্যাচসেরা হয়ে যা বললেন এবাদত

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট শিকার করে ম্যাচসেরা হয়েছেন টাইগার পেসার এবাদত হোসেন। কিউইদের দ্বিতীয় ইনিংসেই তার শিকার ৬ উইকেট। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ঐতিহাসিক এ জয়ের পর তিনি স্মরণ করেছেন তার অতীত জীবনকে। কথা বলেছেন তার সৈনিক জীবন, ভলিবল ও ক্রিকেট জীবন নিয়েও।

ম্যাচ শেষে এবাদত বলেন, নিউজিল্যান্ড টেস্টের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। আমরা তাদের হারিয়েছি। এটা আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা দেবে। ওটিস গিবসনের অধীনে আমি কঠোর পরিশ্রম করছি। আমি একজন সৈনিক এবং জানি কীভাবে উদযাপন করতে হয়। ভলিবল থেকে ক্রিকেটে আসার আমার একটা দীর্ঘ গল্প রয়েছে। এখন আমি ক্রিকেটকে উপভোগ করছি।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশের এটি ঐতিহাসিক জয়। কিউইদের মাটিতে এর আগে কোনো ফরম্যাটেই জিতেনি টাইগার বাহিনী। সেই গেরো কাটল ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ দিয়েই, তাও আবার ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৩২৮ রান করে নিউজিল্যান্ড। জবাবে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস শেষ হয় ৪৫৮ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ১৬৯ রান করলে জয়ের জন্য ৪০ রানের টার্গেট পায় মুমিনুল হক বাহিনী।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) ৪০ রানের টার্গেট দুই উইকেট হারিয়ে হেসেখেলে পেরিয়েছে বাংলাদেশ। টাইগারদের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে নাজমুল হোসেন শান্ত ১৭, মুমিনুল ১৩ ও মুশফিকুর রহিম ৫ রান করেন। শান্তকে আউট করেন কাইলে জেমিসন। এর আগে ৩ রান করা সাদমান ইসলামকে সাজঘরে পাঠান টিম সাউদি।

টাইগারদের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ড অলআউট হয়েছে ১৬৯ রানে। পঞ্চম দিনের শুরুতেই জোড়া উইকেট নেন এবাদত হোসেন ও তাসকিন আহমেদ। দিনের শুরুতেই আগের দিনের অপরাজিত থাকা রস টেলরকে সাজঘরে পাঠান টাইগার পেসার এবাদত। এবাদতের বল সরাসরি স্টাম্পে আঘাত হানে টেলরের।

১০৪ বলে তিনি করেন ৪০ রান। এ উইকেটের ফলে ৫ উইকেট পূর্ণ হয় এবাদতের। টেস্টে বাংলাদেশের পেসারদের এটি ৯ বছর পর প্রথম কোনো পাঁচ উইকেট শিকারের ঘটনা। টেলরকে বিদায় করার পর এবাদতের শিকারে পরিণত হন কাইলে জেমিসনও। শরিফুল ইসলামকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন তিনি। নামের পাশে কোনো রানই তুলতে পারেননি জেমিসন।

এরপর তাসকিন আহমেদ তুলে নিলেন রাচীন রবীন্দ্রর উইকেট। রবীন্দ্রর পর তাসকিন নিয়েছেন টিম সাউদির উইকেটও। এদের মধ্যে রবীন্দ্র ১৬ ও সাউদি শূন্য রানে আউট হয়েছেন। ৮ রান করা বোল্টকে ফেরত পাঠান মিরাজ। বাংলাদেশের হয়ে এ ইনিংসে ৪৬ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নেন এবাদত। তাসকিন নেন ৩ উইকেট।

এর আগে প্রথম ইনিংসে ৩২৮ রান করে নিউজিল্যান্ড। স্বাগতিকদের হয়ে সেঞ্চুরি করেন ডেভন কনওয়ে। ২২৭ বলে ১২২ রান করে টাইগার দলপতি মুমিনুল হকের শিকার হন তিনি। হেনরি নিকোলস ও উইল ইয়াং পূর্ণ করেন হাফসেঞ্চুরি। নিকোলস ৭৫ ও ইয়াং ৫২ রান করেন। বাকিদের মধ্যে রস টেলর ৩১, টম ব্লান্ডেল ১১ রান করেন। বাংলাদেশের হয়ে তিনটি করে উইকেট পান শরিফুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান মিরাজ। মুমিনুল ২ উইকেট ও এবাদত এক উইকেট পান।

জবাবে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস থামে ৪৫৮ রানে। টাইগারদের হয়ে চারজন ব্যাটারে সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে গিয়ে আউট হন। নাজমুল হোসেন শান্ত ৬৪ রানে ও মাহমুদুল হাসান জয় ৭৮ রানে নিজেদের উইকেট হারান। এরপর মুমিনুল ৮৮ রান করে আউট হন ট্রেন্ট বোল্টের বলে। মিডল অর্ডারে লিটন দাস করেন ৮ রান। শেষ দিকে মেহেদী হাসান মিরাজের ব্যাট থেকে ৪৭ ও ইয়াসির আলি রাব্বির ব্যাট খেবে ২৬ রান আসে। নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৪ উইকেট নেন বোল্ট। তিন উইকেট পান নেইল ওয়েগনার।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.