যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র ধ্বংসের মুখে

অসংখ্য বিষয়ে গভীর বিভাজন থাকা সত্ত্বেও মার্কিনিরা রাজনৈতিকভাবে একটি বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছেছে। প্রায় ৬০ শতাংশ মনে করছেন ধ্বংসের মুখে পতিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র। দেশটির কুইনিপিয়াক বিশ্ববিদ্যালয়ের পোলিং ইনস্টিটিউটের সাম্প্রতিক জরিপে এ শঙ্কার কথা বলা হয়েছে। জরিপে অংশ নেওয়া অধিকাংশ নাগরিকই মনে করছেন ২০২১ সালের ৬ জানুয়ারির মতো হা’ম’লা’র আ’শঙ্কা এখনো রয়েছে।

ফোর্বস। ৭ থেকে ১০ জানুয়ারি পরিচালিত জরিপে অংশ নিয়েছিলেন এক হাজার ৩১৩ প্রাপ্তবয়স্ক মার্কিনি। এতে দেখা গেছে, ৫৮ শতাংশ উত্তরদাতা বিশ্বাস করেন দেশের গণতন্ত্র ঝুঁকিতে রয়েছে। এদের মধ্যে ৬২ শতাংশ রিপাবলিকান, ৫৭ শতাংশ স্বতন্ত্র এবং ৫৬ শতাংশ ডেমোক্র্যাট।

৬ জানুয়ারি ওই হা’ম’লাকে পেছনে ফেলে ‘এখন এগিয়ে যাওয়ার সময়’ কিনা এবং ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অংশ নেওয়া উচিত কিনা-এ নিয়ে গভীরভাবে বিভক্ত নাগরিকরা। ৫০ শতাংশ উত্তরদাতা বলেছেন, গত জানুয়ারিতে মার্কিন ক্যাপিটলে হামলার ঘটনা ‘কখনো ভুলে যাওয়া উচিত নয়’। এদের মধ্যে ৮৮ শতাংশ ডেমেক্র্যাট।

আর ৪৪ শতাংশ উত্তরদাতা মনে করছেন, ‘এখন শুধুই এগিয়ে যাওয়ার সময়’। একই রকম হা’ম’লা ফের হতে পারে কি-না প্রশ্নে ৫৩ শতাংশ উত্তরদাতা বিশ্বাস করেন ‘খুব কিংবা কিছুটা’ আশঙ্কা আছে। এদের মধ্যে ৬৯ শতাংশ ডেমোক্র্যাট এবং ৩৬ শতাংশ রিপাবলিকান।

কুইনিপিয়াকের বুধবার প্রকাশিত অনুসন্ধান ডেমোক্র্যাটদের জন্য আরো হতাশাজনক খবর নিয়ে এসেছে। জরিপ অনুসারে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের গ্রহণযোগ্যতা আগের জরিপের চেয়ে (৩৬ শতাংশ) ৩ শতাংশ কমে ৩৩ শতাংশ হয়ে গেছে।

স্বৈরশাসকদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার- হিউম্যান রাইটস ওয়াচ রিপোর্ট : এদিকে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ রিপোর্টের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিশ্বে স্বৈরশাসকদের ভবিষ্যৎ খুব একটা সুখকর হবে না। গত বছর তথা ২০২১ সালজুড়েই কঠোর চ্যালেঞ্জের মুখে ছিল স্বৈরশাসকরা। সামনের দিনগুলোতে তারা আরও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট ২০২২’-এ বলা হয়েছে, এই মুহুর্তে যতটা মনে হচ্ছে, একনায়কদের ভবিষ্যৎ তার চেয়েও অন্ধকার হবে।

তবে সেক্ষেত্রে দেশে দেশে একনায়কদের উত্থান ঠেকাতে এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে গণতান্ত্রিক দেশগুলোকেই এগিয়ে আসতে হবে। নেতাদেরকে আরও কাজ করতে হবে। এক সাক্ষাৎকারে হিউম্যান রাইটসের প্রধান কেনেথ রথ বলেন, ‘দেশে দেশে একনায়ক সরকারগুলো তাদের জনগণের ওপর ব্যাপক দমন-পীড়ন ও সহিংসতা চালাচ্ছে। এটা তাদের দুর্বলার লক্ষণ।’

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.