যুক্তরাষ্ট্র নির্বাচন ২০২০: কৃষ্ণাঙ্গদের যেভাবে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত রাখা হয়

সেলমা, অ্যালাবামা, ২৫ জানুয়ারি, ১৯৬৫। ডালাস কাউন্টির কোর্টহাউসে ভোটার হিসেবে নাম লেখাতে এসেছেন অ্যানি লী কুপার। শুধু তিনি নন, লাইনে দাঁড়িয়ে আরও বহু কালো মানুষ। তারা সবাই ভোটার হতে চান। অ্যালাবামা রাজ্যে ভোটার হওয়ার জন্য এটিই অ্যানি লী কুপারের প্রথম চেষ্টা নয়। এর আগেও তিনি বহু বার এই কাউন্টি অফিসে এসেছেন। ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেছেন।

“একদিন আমি দাঁড়িয়ে ছিলাম সকাল সাতটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত। কিন্তু তারপরও নাম লেখাতে পারিনি,” জানিয়েছিলেন তিনি। সেলমা শহরের প্রায় অর্ধেক লোক ছিল কৃষ্ণাঙ্গ, কিন্তু তাদের মধ্যে তখন ভোটার হতে পেরেছিল মাত্র এক শতাংশ। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক অধিকার আন্দোলন তখন তুঙ্গে, মার্টিন লুথার কিং সারাদেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন তার অহিংস আন্দোলনের মাধ্যমে।

তাদের মনোযোগ এবার নিবদ্ধ সেলমায়। সেখানে কালোদের সংগঠিত করতে কাজ করছে কয়েকটি সংগঠন। লোকজনকে ভোটার হতে উদ্বুদ্ধ করছে তারা। উনিশশো পঁয়ষট্টি সালের ২৫শে জানুয়ারি সকালে তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে বহু কালো মানুষ গিয়ে লাইন দিলেন ডালাস কাউন্টির অফিসে।

কিন্তু আগের বহুবারের মতো, এবারো অ্যানি লী কুপার এবং তার সতীর্থদের ব্যর্থ হতে হলো। শহরের শেরিফ জিম ক্লার্ক তাদের নির্দেশ দিলেন সেখান থেকে চলে যাওয়ার জন্য। শেরিফ ক্লার্ক তার হাতের লাঠি দিয়ে গুতো দিলেন অ্যানি লী কুপারের ঘাড়ে।

এবার যেন অ্যানি লী কুপারের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙ্গে গেল। মূহুর্তের ঘুরে কষে ঘুষি মারলেন শেরিফের চোয়ালে। সেই ঘুষিতেই মাটিতে পড়ে গেলেন জিম ক্লার্ক। এরপর সেদিন এই কোর্ট হাউসে যা ঘটেছিল, তা ইতিহাস হয়ে আছে। মার্টিন লুথার কিং এর জীবনকাহিনী নিয়ে তৈরি অস্কার বিজয়ী বিখ্যাত ছবি সেলমা-তে এই দৃশ্যে অ্যানি লী কুপারের ভূমিকায় অভিনয় করেন মার্কিন শো বিজ তারকা অপ্রা উইনফ্রে।

অ্যানি লী কুপারকে এরপর সেদিন মাটিতে ফেলে লাঠি দিয়ে বেদম পেটানো হয়। তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ আনা হয়। তাকে গ্রেফতার করে জেলখানায় নিয়ে যাওয়া হয়। কাউন্টি শেরিফের অফিসে কেউ কেউ তার বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার মামলা আনতে চেয়েছিল।

আর এসব কিছুই ঘটেছিল অ্যানি লী কুপার ভোটার তালিকায় নাম লেখাতে চেয়েছিলেন বলে। এটি ঘটছিল এমন এক দেশে, যে দেশটি তখনো এবং এখনো পরিচিত গণতান্ত্রিক বিশ্বের একনম্বর দেশ হিসেবে। ‘দ্য ব্লাডি সানডে’ যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক অধিকার আন্দোলন এবং কৃষ্ণাঙ্গদের ভোটের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে সেলমা এক গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক হয়ে আছে।

ভোটার হওয়ার জন্য জানুয়ারির ব্যর্থ চেষ্টার পর সেখানে এক গণমিছিলের কর্মসূচি নেয়া হয়। এই মিছিল যাবে সেলমা থেকে অ্যালাবামা রাজ্যের রাজধানী মন্টোগোমারি। পথের দূরত্ব ৫৪ মাইল। উনিশশো পঁয়ষট্টি সালের ৭ই মার্চ মিছিল শুরু হলো সেলমার এক চার্চ থেকে। ছয়শোর মতো কৃষ্ণাঙ্গ নারী-পুরুষ সেই মিছিলে।

অ্যালাবামার গভর্নর জর্জ ওয়ালেস এরই মধ্যে এই মিছিলকে বেআইনি ঘোষণা করেছেন। রাজ্যের পুলিশ বাহিনীকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে মিছিলে বাধা দেয়ার জন্য।পঁচিশ বছর-বয়সী জন লুইসের নেতৃত্বে মিছিল পৌঁছালো একটি ব্রীজের ওপর। ব্রিজের অপর পাশে পুলিশ প্রস্তুত। সঙ্গে আছে ঘোড় সওয়ার বাহিনীও।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের এটি এক যুগান্তকারী মূহুর্ত। সেদিন এই ব্রীজের ওপর যা ঘটেছিল, তা স্মরণীয় হয়ে আছে ব্লাডি সানডে নামে। জন লুইসের নেতৃত্বে ব্রীজের ওপর দিয়ে মিছিল যখন এগিয়ে যাচ্ছে, ব্যাটন হাতে দ্রুত ধেয়ে এলো রাজ্য পুলিশ। তাদের ওপর চালিয়ে দেয়া হলো ঘোড়া। আহত হলো বহু নারী-পুরুষ। তাদের রক্তাক্ত আহত মুখের ছবি দেখলো গোটা দেশের মানুষ।

পুরো ঘটনাটি ঘটেছিল সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে। টেলিভিশনের পর্দায় গোটা পৃথিবী দেখলো, আমেরিকায় ভোটের দাবিতে মিছিল করা কৃষ্ণাঙ্গদের ওপর কিভাবে নিষ্ঠুরভাবে লেলিয়ে দেয়া হয়েছে পুলিশ। কৃষ্ণাঙ্গদের ভোটাধিকারের দাবি যেন এবার জাতীয় ইস্যুতে পরিণত হলো।

যেভাবে বাদ দেয়া হতো ভোটার তালিকা থেকে ধরা যাক, যুক্তরাষ্ট্রে কেউ ভোটার তালিকায় নাম লেখাতে গেছেন। রাজ্য নির্বাচন অফিসের কেরানি তাকে বললেন, “সংবিধানের এই ধারাটির ওপর একটি রচনা লিখে আনুন। তারপরই আপনাকে ভোটার করা হবে।”

এই ব্যক্তির ভোটার হওয়ার সম্ভাবনা কতটা? নেই বললেই চলে। কোন দেশের ভোটাররাই দেশের সংবিধান মুখস্থ রাখেন না। সংবিধান যে ভাষায় লেখা হয়, তার মর্ম সাধারণের পক্ষে উপলব্ধি করাও কঠিন। এর অনেক রকম ব্যাখ্যা থাকে। সেই ব্যাখ্যা দিতে পারেন ঝানু সংবিধান বিশেষজ্ঞরা।

কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের অনেক রাজ্যে ভোটার হওয়ার ক্ষেত্রে এমন নানা রকম নিয়মই চালু করা হয়েছিল। এসব নিয়মের লক্ষ্য ছিল মূলত কৃষ্ণাঙ্গদের ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করা। এক কৃষ্ণাঙ্গ নারী তার এরকম এক অভিজ্ঞতার কথা রেকর্ড করে গেছেন ইউনিভার্সিটি অব সাদার্ন মিসিসিপির সেন্টার ফর ওরাল হিস্ট্রি এন্ড কালচারাল হেরিটেজে।

উনিশশো বাষট্টি সালে ফ্যানি লো হেমার গিয়েছিলেন মিসিসিপির ইন্ডিয়ানোলা শহরের কাউন্টি ক্লার্কের অফিসে ভোটার তালিকায় নাম লেখাতে। তাকে রাজ্যের সংবিধানের একটি অংশের ওপর প্রবন্ধ লিখতে বলা হয়েছিল। “সেটা ছিল অসম্ভব। এই সংবিধান কি, সেটাই তো আমি বুঝি না। আর আমাকে বলা হচ্ছে সেটা ব্যাখ্যা করতে,” বলেছিলেন তিনি।

সেদিন বাড়ি ফেরার পর ফ্যানি লো হেমার নানা রকমের হুমকির মুখে পড়লেন। ভোটার হওয়ার আবেদন প্রত্যাহারের জন্য তার ওপর চাপ দিলেন বাড়িওয়ালা। নইলে তাকে বাড়ি ছাড়তে হবে। সেই রাতেই বাড়ি ছাড়লেন তিনি।

ভোটার হতে গেলে এরকম নানা বাধা-বিপত্তি আর হুমকির মুখে পড়তে হতো কৃষ্ণাঙ্গদের। যেসব নিয়ম-কানুনের বেড়াজাল দিয়ে তাদের ভোটার তালিকার বাইরে রাখা হতো সেগুলো মূলত তৈরি করতো প্রতিটি রাজ্য নিজের মতো করে। এই আইনগুলো পরিচিত ‘জিম ক্রো’ আইন নামে। নিউ অরলিন্স, ১৮৬৭: এই এনগ্রেভ করা চিত্রে দেখা যাচ্ছে দাসত্ব থেকে মুক্ত কৃষ্ণাঙ্গ মানুষেরা নির্বাচনে ভোট দিচ্ছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *