যে কারণে চীনের সহায়তায় ব্যালাস্টিক মিসাইল বানাচ্ছে সৌদি

চীনের সহায়তায় নিজ দেশে ব্যালাস্টিক মিসাইল বানাচ্ছে সৌদি আরব। ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাসে এমন তথ্য জানায় যুক্তরাষ্ট্র। সৌদি আরব আগেও নিজেদের নিরাপত্তার জন্য ব্যালাস্টিক মিসাইল কিনেছে। সেটিও চীনের কাছ থেকে। কিন্তু এবার নিজ দেশ থেকেই ব্যালাস্টিক মিসাইল বানাচ্ছে তারা।

সৌদি আরব কেন নিজ দেশেই মিসাইল বানানোর কাজ হাতে নিয়েছে? এ প্রশ্ন সবার। এর উত্তর দিয়েছেন ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা বিশ্লেষক প্রফেসর মাইকেল ট্যানকাম।গণমাধ্যম দ্য নিউ আরবকে দেয়া সাক্ষাতকারে প্রফেসর মাইকেল ট্যানকাম দুটি উল্লেখযোগ্য কারণ বলেন।

সেগুলো হলো আঞ্চলিক নিরাপত্তার ঝুঁকি বেড়ে যাওয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেন নির্বাচিত হওয়া। ২০১৯ সালে সৌদির দুইটি বড় তেল শোধনাগার স্থাপনায় হামলা চালায় ইরানপন্থী বিদ্রোহীরা। বিষয়টি বেশ ভাবিয়ে দিয়েছে সৌদিকে। এজন্য তারা নিজেরা আরো বেশি সমৃদ্ধিশালী হতে চায়।

এজন্য চীনের শরণাপন্ন হয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। আর এ কারণে চীনও সৌদিকে সহায়তা করছে। প্রফেসর মাইকেল ট্যানকাম বলেন, নিজেদের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কারণে ২০০৭ সালে চীনের কাছ থেকে ব্যালাস্টিক মিসাইল কেনে সৌদি। বারাক ওবামা যখন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হন, তখনই সৌদি আরবের মনে সন্দেহের উদ্রেগ হয়।

তারা ভাবতে থাকে ইরানের হুমকি মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রকে কি তারা পাবে? প্রফেসর মাইকেল ট্যানকাম আরো বলেন, বারাক ওবামা প্রশাসনের ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যখন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন তখন সৌদির মনে নতুন করে এ সন্দেহ বেড়ে যায়।

এটিকে কাজে লাগায় চীন। তারা সৌদির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়। চীন চায় মধ্যপ্রাচ্যে স্থিতিশীলতা। ইরান যেহেতেু মিসাইলের দিক দিয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। তাই চীন চায় ইরানের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বি সৌদিও মিসাইলের দিক দিয়ে শক্তিশালী হোক।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.