যে ‘ফিফটি’ চায়নি ইংল্যান্ড

ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারেই পূর্ণ হলো পঞ্চাশ! তবে এটি এমন একটি ফিফটি, যা মোটেও চায়নি ইংল্যান্ড। চায় না কোনো দলই। অ্যাশেজের বক্সিং ডি টেস্টে রোববার টস জিতে বোলিংয়ে নামে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারেই অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক প্যাট কামিন্স ফিরিয়ে দেন হাসিব হামিদকে। ইংলিশ ওপেনার আউট হন কোনো রান না করেই।

হামিদের এই শূন্য রানে আউট হওয়া ছিল এই বছর ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের ৫০তম ‘ডাক!’ এক পঞ্জিকাবর্ষে এক দলের ব্যাটসম্যানদের শূন্যের ‘হাফসেঞ্চুরি’ করার দ্বিতীয় নজির এটি। ইংল্যান্ড এগিয়ে চলেছে নিজেদেরই অনাকাঙ্ক্ষিত রেকর্ড ভাঙার দিকে। ১৯৯৮ সালে ইংল্যান্ডের ২৮ ব্যাটসম্যান শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন মোট ৫৪ বার।

এক বছরে এক দলের সবচেয়ে বেশিবার শূন্য রানে ফেরার রেকর্ড সেটিই। এই বছর হামিদকে দিয়ে ইংল্যান্ডের ২৫ ব্যাটসম্যান আউট হলেন ৫০ বার। এই রেকর্ডের তিনে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০০০ সালে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানদের ‘ডাক’ ছিল ৪৪টি, ১৯৯৯ সালে অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের ছিল ৪০টি।

রেকর্ডের পাঁচে আছে ভারত, ২০১৮ সালে তাদের ব্যাটসম্যানরা শূন্য রানে ফিরেছেন মোট ৩৯ বার। বাংলাদেশের এক বছরে সবচেয়ে বেশি শূন্য ২০০২ সালে, সেবার ২৪ ব্যাটসম্যান কোনো রান না করেই আউট হয়েছেন মোট ৩৫বার। শূন্যের রেকর্ডে সাধারণত লেজের ব্যাটসম্যানরাই থাকেন ওপরের দিকে।

বিস্ময়করভাবে, এই বছর ইংল্যান্ডের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৬বার শূন্য রানে ফিরেছেন ওপেনার ররি বার্নস! টেস্ট ইতিহাসেই যা রেকর্ড। ১৯৫২ সালে ভারতীয় ওপেনার পঙ্কর রায় শূন্যতে ফিরেছিলেন ৫ বার। চলতি বক্সিং ডে টেস্ট এই বছর ইংল্যান্ডের শেষ টেস্ট। নিজেদের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাওয়ার শঙ্কা এখনও তাই আছে তাদের।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.