লঘুচাপ সৃষ্ট, ৪ সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর সংকেত

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি বর্তমানে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ উপকূলীয় এলাকায় অবস্থান করছে। এর ফলে সাগর উত্তাল রয়েছে। ফলে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার,

মংলা এবং পায়রা সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। বুধবার (৫ আগস্ট) আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি বর্তমানে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তর উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ উপকূলীয় এলাকায় অবস্থান করছে।

এর প্রভাবে এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মৌসুমী বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্রবন্দর সমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

আরো পড়ুন:- করো’নায় স্বামীর মৃ’ত্যু, লা’শ ফেলে পালাল স্ত্রী: ঢাকার অদূরে আশুলিয়ায় গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে করো’নাভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে এক যুবকের মৃ’ত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ওই যুবকের মৃ’ত্যুর পর সেখানে লা’শ ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে তার স্ত্রী ও স্বজনরা।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ঈদের দিন করো’নাভাই’রাসের উ’পসর্গ নিয়ে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকা থেকে স্বপন মিয়া নামের (৩৫) এক যুবককে আশুলিয়ার বাইশমাইল এলাকার গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন তার স্ত্রী ও স্বজনরা।

৪ দিন চিকিৎসার পর মঙ্গলবার গভীর রাতে ওই যুবকের মৃ’ত্যু হয়। স্বপনের মৃ’ত্যুর খবর পেয়ে লা’শ রেখে তার স্ত্রী ও স্বজনরা পালিয়ে যায়। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নি’হ’ত স্বপনের স্ত্রী ও স্বজনদের কোনো ঠিকানা না পেয়ে যুবককে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাইশমাইল এলাকায় একটি কব’রস্থানে দা’ফন করেছে।

গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, নিহত যুবকের স্বজনদের কোনো খোঁজ না পেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ওই যুবকের লা’শ বাইশমাইল এলাকার একটি ক’বরস্থানে দা’ফন করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *