সানজামুলের ঘূর্ণি জাদুতে উত্তরাঞ্চলের দাপুটে জয়

বাঁহাতি স্পিনার সানজামুল ইসলামের ঘূর্ণি জাদুতে মাত্র তিন দিনেই ম্যাচ জিতলো উত্তরাঞ্চল। পূর্বাঞ্চলকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে তারা। ১৪৪ রান পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছিল ইসলামি ব্যাংক পূর্বাঞ্চল। কিন্তু প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও বড় সংগ্রহ দাঁড় করাতে পারেনি তারা। উত্তরাঞ্চলের বাঁহাতি স্পিনার সানজামুলের ঘূর্ণিতে পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়েছে।

লেট অর্ডারে অফস্পিনার নাঈম হাসানের ৪৫ ও তানভীর ইসলামের ৩০ রানের অপরাজিত ইনিংসে ২৫৪ রান করতে পেরেছে পূর্বাঞ্চল। জবাবে ১১১ রানের সহজ লক্ষ্য তৃতীয় দিনেই ৪ উইকেট হারিয়ে টপকে গেছে বিসিবি উত্তরাঞ্চল।
রাজশাহীর শহীদ কামারুজ্জামান স্টেডিয়ামে ১৭ রানে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছিল পূর্বাঞ্চলের দুই ওপেনার ইমরুল ও আশরাফুল।

তৃতীয় দিন সকালে খুব বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি তারা। ইমরুল ২৩ ও আশরাফুল ১৮ রানে সাজঘরে ফিরেছেন। টপ অর্ডারের মতো মিডল অর্ডারও বড় ইনিংস খেলতে পারেনি। শামসুর রহমান ১৮, শাহদাত হোসেন দিপু ২৭, আফিফ হোসেন ৩৫, প্রিতম কুমার ৩৩ রান করে আউট হন। লেট অর্ডারে নেমে নাঈম হাসান ৪৫ ও তানভীরের অপরাজিত ৩০ রানেই মূলত পূর্বাঞ্চল ২৫৪ রান করতে পারে।

উত্তরাঞ্চলের হয়ে একাই ৮টি উইকেট নিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার সানজামুল ইসলাম। বাকি দুটি উইকেট নেন শফিকুল ইসলাম। ১১১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দলীয় ২২ রানে সাজঘরে ফেরেন জুনিয়র তামিম (১৯)। তিন নম্বরে নামা তানভীর হায়দারও (৭) বেশিক্ষণ ক্রিজে ছিলেন না।

তৃতীয় উইকেটে জুনায়েদ সিদ্দিকী ও নাঈম ইসলাম মিলে ৫৯ রান যোগ করেন। নাঈম ২৮ রানে আউট হওয়ার দুই ওভার পর ফিরে যান জুনায়েদও (৩৮)। যদিও ততক্ষণে জয়ের বন্দরে পৌঁছে গেছে উত্তরাঞ্চল। মার্শাল আইয়্যুব ১২ ও মাহিদুল অঙ্কন ৫ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন।

পূর্বাঞ্চলের হয়ে তানভীর ইসলাম দুটি এবং নাঈম হাসান ও আফিফ হোসেন একটি করে উইকেট নিয়েছেন। এর আগে আশরাফুলের ৭০ রানের ইনিংসে ভর করে ১৬৬ রান সংগ্রহ করে পূর্বাঞ্চল। প্রথম ইনিংসে পূর্বাঞ্চলের শফিকুল ইসলাম ৫টি ও সানজামুল ইসলাম তিনটি উইকেট নিয়েছেন। জবাবে উত্তরাঞ্চল জুনিয়র তামিমের ৯১ রানে ৩১০ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায়।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.