সাবেক স্বামীকে খোঁচা দিলেন মাহি!

মাহির বিয়ে প্রসঙ্গে তার সাবেক স্বামী মাহমুদ পারভেজ অপু গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মাহির বিয়ের খবরটি অনেক দিন ধরেই শুনছি। ১৩ সেপ্টেম্বর সকালে মাহির ফেসবুকে ছবি ও পোস্ট দেখে নিশ্চিত হয়েছি। নতুন সংসার শুরু করেছে জেনে খুব ভালো লাগছে। তার জন্য শুভকামনা। আমার চাওয়া, নতুন সংসারে মাহি সবসময় ভালো থাকুক।’

মাহিকে বিশ্বাস করে তার মর্যাদা পাননি অপু। তার ধারণা, মিডিয়ার মেয়েরা অন্য সব মেয়েদের মতো নয়, একটু জটিল। তিনি বলেন, ‘আর কখনো মিডিয়ার মেয়ে বিয়ে করবো না। বাবা-মায়ের পছন্দে বিয়ে করবো।’ অপুর এমন মন্তব্য কানে যেতেই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মাহি।

বিয়ের তিন দিন যেতে না যেতেই ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘যখন আপনি কাউকে আপনার জীবন থেকে বাদ দেন, তখন তারা মানুষকে পুরো গল্পটি বলবে না, তারা কেবল তাদের সেই অংশটি বলবে যা আপনাকে খারাপভাবে প্রকাশ করবে এবং তাদেরকে নি’র্দোষ দেখাবে।’ সেখানে এই অভিনেত্রী কারও নাম উল্লেখ না করলেও নেটিজেনরা ধরে নিয়েছেন মাহি তার সাবেক স্বামী অপুর কথাকে কেন্দ্র করেই এমন স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

এদিকে মাহির সেই স্ট্যাটাসে তার বর্তমান স্বামী রাকিব সরকার লিখেছেন- ‘কয় জন বড় হয় না,সয় জন বড় হয়…’। রাকিবের সঙ্গে মাহির বন্ধুত্ব বেশ পুরনো। দুজনের মতের মিল এবং বোঝাপড়াও ভালো। আর তাই ৯ বছরের বন্ধুত্বকে বিয়েতে রূপ দিয়েছেন তারা। এই বিয়ে নিয়ে আশাবাদী মাহি।

তাদের দুজনেরই এটি দ্বিতীয় বিয়ে। প্রথম স্ত্রীর সংসারে দুই সন্তানের জনক রাকিব। এরমধ্যে একটি ছেলে একটি মেয়ে। ছেলেটির নাম সোয়াইব ও মেয়েটির নাম সাইয়ারা। প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ২৫ মে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে বিয়ে করেছিলেন মাহিয়া মাহি। পঞ্চম বিবাহ বার্ষিকীর আগেই সেই সংসার ভেঙে যায়।

গেলো ২২ মে দিনগত রাতে স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের বিষয়টি স্পষ্ট করে স্ট্যাটাস দেন নায়িকা। কিছুদিন যেতে না যেতেই আবারও মাহির বিয়ের গুঞ্জন ওঠে। মাহি সে বিষয়টি অস্বীকার করলেও গুঞ্জন পিছু ছাড়ে না। এ সংক্রান্ত কিছু ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। যা এই গুঞ্জনকে জোরালো করে। এবার সেই গুঞ্জন বাস্তবে রূপ নিয়েছে।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.