সেই খর্বাকৃতির গরুর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা কাটল

গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের অপেক্ষায় থাকা সাভারের ‘রাণী’ নামের ২০ ইঞ্চি উচ্চতা ও ২৬ কেজি ওজনের খর্বাকৃতির গরুটি মারা গেছে বলে জানিয়েছে শিকড় এগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিডেট কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার পর রাণীর মৃ’ত্যুর সংবাদ সাভার উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় নিশ্চিত করার পরপর প্রতিষ্ঠানটির মালিক মৃ’ত্যুর সংবাদটিকে ‘গুজব’ বলে দাবি করেন।

তবে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে ফেসবুক পেজে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক মুজতাবা আবুল আহাদ রাণীর মৃ’ত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করে পোস্ট দেন। তিনি লিখেন, পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট গরু হিসেবে বাংলাদেশের হয়ে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের স্বীকৃতি পাওয়ার আগেই মা’রা গেল শিকড় এগ্রোর ‘রাণী’।

গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পাওয়া তৃতীয় ইমেইলের উত্তর দেওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার সকালে তাদের প্রতিষ্ঠানের দুই কর্মকর্তা শিকড় এগ্রোর সাভার শাখায় যান। তিনি আরও জানান, ছবি তোলার সময় অতিরিক্ত গ্যাসের কারণে পেট ফোলা নজরে আসায় তাদের পশু চিকিৎসক আতিকুজ্জামানের পরামর্শে তৎক্ষণাৎ রাণীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

হাসপাতালে নেওয়ার পরপরই বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা রাণীর সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেন। রাণী কিছুক্ষণ ভালো থাকার পর মারা যায়। চিকিৎসা চলাকালে জীবিত থাকা অবস্থায়ই রাণীর মৃ’ত্যুর গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হয় বলে তিনি তার পোস্টে মন্তব্য করেছেন। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষকে আনুষ্ঠানিকভাবে রাণীর মৃ’ত্যুর কথা জানানো হয়েছে বলেও তিনি পোস্টে উল্লেখ করেছেন।

এর আগে, বৃহস্পতিবার সাভার উপজেলা উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল মোতালিব বলেন, মূলত গরুটি দুই-তিন দিন থেকে অসুস্থ। সেই ফ্রার্মের নিজস্ব ডাক্তার এতদিন চিকিৎসা করেছে। পরে গরুটির অবস্থার অবনতি হলে সাভারে পশু হাসপাতালে আনে দুপুরে। পরে চিকিৎসা দেওয়ার সময় আধাঘণ্টা পরই গরুটির মৃ’ত্যু হয়।

মূলত গরুটির খাবারে সমস্যা হওয়ার কারণে মা’রা গেছে। যাকে বলে ফুট পয়জন। ছোট গরু হিসেবে দানাদার খাবারটা একটু বেশি দিয়ে ফেলায় এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছিল। অন্যদিকে গরুটি বেঁচে থাকার কথা জানিয়ে ফার্মের ব্যবস্থাপক আবু সুফিয়ান বলেছিলেন, রাণীকে বিভিন্ন সময় চুরির চেষ্টা চালানো হয়েছে। এছাড়া অনেকেই দেখতে আসেন।

এসব কারণে তার নিরাপত্তা হুমকি ছিল। সম্প্রতি রাণীর মতো আরেকটি গরুও আনা হয়েছে এখানে। নতুন গরু আনার পর রাণীকে আরেক ঘরে নেওয়া হয়েছে। ওখানে নেওয়ার পরেই রাণী অসুস্থ হয়ে পড়ে। তবে মারা যাওয়ার খবরটি গুজব। ছোট গরু হওয়ায় অনেক সময় সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পেট ফুলে যায়। তবে ফের সুস্থ হয়ে যায়। এটা নিয়মিত প্রক্রিয়া।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.