স্কুলের বইয়ে আদর্শ বাবা-মা হিসেবে সুশান্ত আর অঙ্কিতার ছবি

বলিউড তারকা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর প্রায় এক বছর পূর্ণ হতে চলেছে। আজও সুশান্তের পরিবার আর অসংখ্য অনুরাগী হাতড়ে চলেছে তাঁর মৃত্যুর কারণ। কেন তিনি বেছে নিলেন আত্মহত্যার মতো নির্মম পথ—এই প্রশ্নের যেন কোনো উত্তর নেই। নেট দুনিয়াজুড়ে আজও এই বলিউড তারকাকে ঘিরে নানা খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এবার তিনি চর্চায় উঠে এলেন বাংলা পাঠ্যপুস্তকের মাধ্যমে। শুধু সুশান্ত নয়, তাঁর সাবেক প্রেমিকা অঙ্কিতাও ঠাঁই পেয়েছেন এই পাঠ্যবইতে। আদর্শ বাবা-মা হিসেবে বাংলা বইয়ে ছাপা হয়েছে সুশান্ত আর অঙ্কিতার ছবি। সঙ্গে একটি শিশুও রয়েছে। এটি জনপ্রিয় মেগা সিরিয়াল পবিত্র রিশতার একটি ছবি।

‘পবিত্র রিশতা’র মধ্য দিয়েই অভিনয় জগতে পা রেখেছিলেন সুশান্ত আর অঙ্কিতা। আর এই সেট থেকেই তাঁদের ভালোবাসার পথচলা শুরু। এরপর প্রায় সাত বছর একসঙ্গে ছিলেন তাঁরা। জানা গেছে, শিশুদের জন্য পরিবারের গুরুত্ব বোঝানোর জন্য সুশান্ত আর অঙ্কিতার ছবি ছাপানো হয়েছে। এই বইতে সুশান্ত-অঙ্কিতাকে আদর্শ বাবা-মায়ের উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। সুশান্তের বন্ধু স্মিতা পারিখ তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে এই পাঠ্যবইয়ের বিশেষ এই পাতাটি শেয়ার করেছেন। এই পাতায় দেখা যাচ্ছে সুশান্ত, অঙ্কিতা আর এক শিশুর ছবি। স্মিতা ছবিটি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষার বাংলা বইতে পরিবার এবং আদর্শ বাবার প্রতিরূপ হিসেবে আমাদের সুশান্তের এক মিষ্টি ছবি ছাপানো হয়েছে। আমি গর্বিত। আর এর দ্বারা প্রমাণিত যে আমাদের শিক্ষা পর্ষদও ওকে একজন ভালো ব্যক্তি হিসেবে জানে, বিশ্বাস করে।’

স্মিতা পারিখের এই পোস্টকে ঘিরে সুশান্তের ফ্যানেরা আনন্দে আত্মহারা। নেট দুনিয়ায় সুশান্তকে ঘিরে তাদের আবেগ, ভালোবাসা ঝরে পড়ছে। একজন ইউজার সুশান্তের উদ্দেশে লিখেছেন, ‘খুবই সুন্দর। মানুষই এমন যে মানবিকতার পরিচয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।’ আর একজনের মন্তব্য, ‘বাহ! আমি শুধু ওনাকেই দেখে যাচ্ছি। একজন যোগ্য বাবা হিসেবে ওনাকে বইয়ের পাতায় বেশ লাগছে। ওনার “ছিছোরে”র কথা মনে পড়ে গেল। এই সিনেমাতে ওনাকে দেখে আমি খুবই কেঁদেছিলাম।’

এর আগে প্রাইমারি বিভাগে বিজ্ঞান বইতে সুশান্তের ছবি ছাপানো হয়েছিল। মানুষ আর জন্তুর মধ্যে পার্থক্য বোঝানোর জন্য তাঁর ছবি ব্যবহার করা হয়েছিল।

২০২০ সালের ১৪ জুন মুম্বাইয়ের বান্দ্রায় নিজের বাসায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন সুশান্ত। সুশান্তের পরিবার এই আত্মহত্যার দায়ভার রিয়া চক্রবর্তী আর তার পরিবারের ওপর চাপায়। সুশান্তের প্রেমিকা রিয়ার বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগ ছিল, রিয়াই সুশান্তকে আত্মহত্যার জন্য প্ররোচনা দিয়েছিল। মাদক কেলেঙ্কারিতে রিয়া কয়েক মাস জেল খেটেছেন। এখন তিনি জামিনে মুক্ত।

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.