সৎ মায়ের মতো আচরণ করেছেন তিনি

ক্রিকেটারদের ফিটনেসের নিয়ে বরাবরই বেশ কড়া অবস্থানে শ্রীলঙ্কান জাতীয় ক্রিকেট দলের হেড কোচ মিকি আর্থার। এই কড়াকড়ির ফলে জাতীয় দলের স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছেন বেশ কয়েক জন লঙ্কান ক্রিকেটার। তাদের ই একজন ভানুকা রাজাপাকশে।

সম্প্রতি এক ইউটিউব চ্যানেলে জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন লঙ্কান এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। ফিটনেসের কারণে জাতীয় দলে জায়গা হয়নি দিলরুয়ান পেরেরা, আভিষেক ফার্নান্দোর মতো ক্রিকেটাররাও। অনেকেই এটাকে লঙ্কান ক্রিকেটের জন্য নেতিবাচক হিসেবে দেখছেন।

অনেক সমালোচনার পরও নিজের নীতিতে অনড় লঙ্কান কোচ আর্থার। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজের কোচের ওপর ক্ষোভ ঝেড়েছেন রাজাপাকশে। তিনি জানিয়েছেন, তাঁর সঙ্গে সৎ মায়ের মতো আচরণ করা হয়েছে। অদ্ভুত কারণ দেখিয়ে তাকে দল থেকে বাদ দেয়া হয়েছে।

রাজাপাকশে বলেন, ‘১২ বছর ধরে আমি কোন বড় ইনজুরিতে পড়িনি বা কোন ম্যাচ থেকে বাদ পড়িনি। আমার সাথে সৎ মায়ের মত আচরণ করা হয়েছে। বোর্ড আমার ভিসা সহ যাবতীয় সবকিছুর ব্যবস্থা করে ফেললেও শেষ মূহুর্তে আমি শুনি যে আমার ত্বকের সমস্যার কারণে আমি সফরে যেতে পারব না।’

রাজাপাকশের এমন মন্তব্যের জবাবে আর্থার বলেছেন, ‘প্রথমত আমি এটা বলতে চাই, খেলোয়াড়রা গনমাধ্যমে কি বলেছে এই ব্যাপারে আমি কিছু বলতে চাই না। কিন্তু যখন এক জন খেলোয়াড় পক্ষপাতিত্বমূলক কথা বলে তখন আমি মনে করি জবাব দেওয়া উচিত। ভানুকা একজন আয়েশি ক্রিকেটার।

দলে আমরা এমন খেলোয়াড় রাখতে চাই না। তার ফিটনেসও যথেষ্ট নয়।’ রাজাপাকশের ফিল্ডিং ও ফিটনেসের সমালোচনা করে আর্থার বলেছেন, ‘সে এক জন প্রতিভাবান খেলোয়াড়, তার হাতে যথেষ্ট শক্তি আছে। বড় শট খেলতে পারে। তাঁর ফিল্ডিং যাই হোক আন্তর্জাতিক মানের নয়। তাঁর ফিটনেসও গড়পড়তা।’

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.