৩০০ যাত্রীকে বিনা ভাড়ায় নদীপার করালো ট্রলারচালক, অর্থ সহায়তা দিল পুলিশ

পুলিশ মানেই কড়া মেজাজের হবেন এমনটা না। পুলিশরা জনগণের সাহায্যকারী। সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা দেয়া, তাদের সহযোগিতা করাই পুলিশের কাজ। ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে অ’গ্নিকা’ণ্ডের ঘটনায় প্রায় ৩০০ যাত্রীকে বিনা ভাড়ায় নদী পার করানো ট্রলারচালক মিলন খানকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে নগদ অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আজ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে তাঁকে নগদ পাঁচ হাজার টাকা তুলে দেন পুলিশ সুপার (এসপি) ফাতিহা ইয়াসমিন। এ সময় মিলন খানের কৃতিত্বের জন্য এসপি তাঁকে ধন্যবাদ জানান। পুলিশের সহায়তা পেয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মিলন খান।

অর্থ সহায়তা পাওয়ার পর ট্রলারচালক মিলন খান জানান, জীবন বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপ দেওয়া ৩০০ যাত্রীকে উদ্ধারে কাজ করেছেন তিনি। বি’পদগ্র’স্ত যাত্রীদের বিনাভাড়ায় নিরাপদে তীরে পৌঁছে দিয়েছেন। তাঁর এ কৃতিত্বে খুশি এলাকার মানুষ। শুধু মিলন নন, নদীপাড়ের দুই গ্রাম দিয়াকুল ও চরবাটারাকান্দার গ্রামবাসীও অংশ নেন উদ্ধারকাজে।

ঝালকাঠির এসপি ফাতিহা ইয়াসমিন বলেন, ‘মিলন খান যে কাজটি করেছেন, তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। আমি প্রথমে বিষয়টি গণমাধ্যমে দেখেছি। আ’গুনের খবর পেয়ে তিনি নিজের ট্রলার নিয়ে বিনা ভাড়ায় মানুষকে পারাপার করেছেন। আমি তাঁকে সামান্য উপহার দিয়েছি।’

Sharing is caring!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.